লকডাউন না মানলে খুব শীঘ্রই রাজ্যে জারি করা হবে কারফিউ! নবান্ন সূত্রে খবর…

যত দিন যাচ্ছে দেশে তত করোনাভাইরাস এর প্রভাব বিস্তার পাচ্ছে আর বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। তাই দেশজুড়ে সংক্রমণ রুখতে একটা বড় অংশের লকডাউন করা হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তরফ থেকে। তবে দেশের এমন অনেক জনগণ রয়েছেন যারা এই আইন ভেঙ্গে বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন এবং নিজেদের সুরক্ষা ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছেন তাই মুহূর্তে মধ্যে ভারতে মৃতের সংখ্যা পৌঁছে গিয়েছে 12 জন আর আক্রান্তের সংখ্যা পেরিয়ে গেছে 500 জনেরও বেশি।

আবার অন্যদিকে রাজ্যে নতুন করে দু‘জনের শরীরে মিলেছে এই নোভেল করোনার ভাইরাসের সংক্রমণ। তাই এবার এই মরণ ভাইরাসকে দ্বিতীয় স্টেজ থেকে তৃতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ আটকাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে সরকার। তবে দেশের জনগণের সচেতনতার অভাবে সেই কাজে উঠছে একাধিক প্রশ্ন।আর গতকাল জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানান আগামী 21 দিনের জন্য গোটা দেশজুড়ে লকডাউন করা হবে।আর যদি এই লকডাউন সম্ভব করানো না যায় 21 দিনের জন্য তাহলে দেশকে আমরা আরো 21 বছর পিছিয়ে ফেলবো।

তবে এখন নবান্ন সূত্রে যে খবর বেরিয়ে আসছে সেখানে জানতে পারা যাচ্ছে রাজ্যগুলিতে কারফিউ জারি করার পরামর্শ দিয়ে দিয়েছে ইতিমধ্যে কেন্দ্র সরকার যেসব এলাকায় লকডাউন মানতে চাইছে না জনগণ সেখানে কারফিউ জারির কথা বলা হয়েছে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে তাই এবার লকডাউন পরিস্থিতিকে নিয়ে জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত করা হবে। যেখানে নবান্ন মুখ্য সচিবের সঙ্গে জেলাশাসকের একটি ভিডিও কনফারেন্স হবে এর দরুন। এই ভিডিও কনফারেন্সে উপস্থিত থাকবেন সিপি- এসিপিরা।

যেখানে তারা বিভিন্ন এলাকার লকডাউন পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করবেন এবং তারপরই স্থির করবেন রাজ্যে কারফিউ জারি করার প্রয়োজন আছে কিনা।গতকাল বিকেল পাঁচটা থেকে রাজ্যজুড়ে শুরু হয়েছে লকডাউন করোনা সংক্রমনের সোশ্যাল ডিসটেন্স এর পরামর্শ ওপর জোর দিয়েছেন সরকার বারবার মানুষকে রাস্তায় জমায়েত করে বেরোতে নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। তা সত্বেও একাধিক জায়গাতে আজ সকাল থেকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে জমায়েত।এমন অনেক মানুষ রয়েছেন যারা এই ভাইরাসের সম্পর্কে সচেতন থাকতে চাইছেন না এবং রাস্তাঘাটে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন তবে অনেক জায়গাতেই পুলিশ ও সেই পরিস্থিতির কড়া হাতে মোকাবেলা করছেন।

যার দরুন বিভিন্ন জায়গায় লাঠিচার্জ করছে পুলিশ।আর এইভাবে যদি পরিস্থিতি সামাল না দেওয়া যায় তাহলে খুব শীঘ্রই কেন্দ্রের নির্দেশ অনুযায়ীই রাজ্য জুড়ে কারফিউ জারি করতে পারে রাজ্য সরকার। আর এর পাশাপাশি একথা জানতে পারা যাচ্ছে পরিস্থিতি যদি খুবই হাতের বাইরে চলে যায় তাহলে সে ক্ষেত্রে নামানো হতে পারে সেন্ট্রাল ফোর্সও।