সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল ভিডিওঃ চীনের সামগ্রী বয়কট করার প্রতিজ্ঞা CRPF জওয়ানদের..

এর আগে বহুবার চীনা দ্রব্য ত্যাগ করার কথা বলেছে ভারত। এমন কী আগেরবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারতবাসীকে আত্মনির্ভর হওয়ার জন্য ডাক দিয়েছিলেন। শুধু তাই নয় চীনা দ্রব্য ত্যাগ করার পেছনে আরো অনেক কারণ রয়েছে ভারতের। ভারতসহ আজকের সারা বিশ্বের যে কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তার জন্য একমাত্র দায়ী হচ্ছে চীন। কারন চীন থেকেই এই মরণ ভাইরাসের উৎপত্তি হয়েছে এবং সমস্ত দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এছাড়া একাধিকবার চীনের বিরুদ্ধে একথাও অভিযোগ উঠেছে তারা এই করোনা ভাইরাস সম্পর্কে একাধিক তথ্য লুকিয়েছে গোটা বিশ্বের কাছে।

বর্তমানে চীনের সাথে ভারতের দ্বন্দ্ব চলছে। আমেরিকা সহ বিভিন্ন জায়গার কোম্পানিগুলি যারা চীনে ঘাঁটি গেড়ে বসে ছিল তারা এখন সবাই ভারতে ব্যবসা করতে ইচ্ছুক। এর জন্যই চীন ভারতের সাথে দ্বন্দ্ব করার চেষ্টা করছে। কারণ চীন থেকে যদি ঐ সমস্ত কোম্পানি উঠে ভারতে বসে যায় তাহলে চীনের আর্থিক অবস্থার অবনতি ঘটবে। এছাড়াও করোনা ভাইরাস এর জন্য চীনকে একঘরে করে দেওয়ার পক্ষে দাঁড়িয়েছে ভারত সহ আরও অন্যান্য দেশ গুলি।

সবমিলিয়ে চীনের দ্রব্য বর্জন করার জন্য ভারত অভিযান শুরু করে দিয়েছে ইতিমধ্যেই। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যেদিন থেকে আত্মনির্ভর ভারত গঠন করার ডাক দিয়েছিলেন সেই দিন থেকেই সেনা ক্যান্টিন থেকে সমস্ত বিদেশী সামগ্রী বর্জন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 1 লা জুন সেনা ক্যান্টিন থেকে প্রায় 1000 রকমের বিদেশি সামগ্রী সরিয়ে ফেলা হয়। তবে শুধুমাত্র সেনারাই নয় দেশের সাধারণ মানুষরাও চীন তথা বিদেশী পণ্য বর্জন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অনেক জায়গায় চীনা দ্রব্য বর্জন করা অভিযান চালু করে দিয়েছে সাধারণ মানুষেরা।

ভারতের এক ব্যবসায়ী সংগঠন CAIT চীনা দ্রব্য বর্জন করার অভিযান আরো দ্রুতগতিতে চালাচ্ছে। এই সংগঠনের সাথে যুক্ত প্রায় 7 কোটি ব্যবসায়ী একসাথে চীনা পণ্য তাদের ব্যবসার তালিকা থেকে বহিষ্কার করে দিয়েছে। এর ফলে দুটি কাজ একসাথে হচ্ছে। একদিকে যেমন চীনের আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে তেমনি আবার ভারতে স্বদেশী দ্রব্যের চাহিদা বাড়ছে যা ভারতের অর্থনৈতিকে আরো শক্তিশালী করে তুলবে। কাশ্মীরে সিআরপিএফ জওয়ানদের চীনা দ্রব্য বর্জন করা একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়। এই ভিডিওতে দেখা যায় সিআরপিএফ জাওয়ানরা একসাথে চীনা পণ্য বহিষ্কার করছেন।এছাড়া উত্তর কাশ্মীরের 117 নং ব্যাটেলিয়ানের জওয়ানেরা চীনা পণ্য বয়কট করার ডাক দিয়েছে।