এই অজ্ঞাত বোলারের সামনে হার মানলো সূর্যকুমার যাদব ও আজিঙ্ক রাহানের মত বড়ো খেলোয়াড়রা, মাত্র 2 ঘণ্টায় গুটিয়ে দিল গোটা টিমের পারি..

ক্রিকেট যে অনিশ্চয়তার খেলা তা বলা যেতে পারে কারণ এখানে কখন কী ঘটে যাবে তা আগে থেকে অনুমান করা সম্ভব হয়ে উঠে না অনেক সময়। একমাত্র ক্রিকেটই হলো সেরকম জায়গা যেখানে রাতো রাত একজন অজ্ঞাত খেলোয়াড় থেকে বড় তারকায় পরিণত হতে পারে যেকোনো খেলোয়াড় তার প্রতিভার জোরে।আর এবারও এরকম এক ঘটনা লক্ষ্য করা গেল ভারতের সবচেয়ে বড় ঘরোয়া টুর্নামেন্টে রঞ্জি ট্রফিতে।

যেখানে এমন এক অজ্ঞাত বোলারের কাছে বাজিমাত হল ভারতের সুনাম করা বড়ো বড়ো ক্রিকেট খেলোয়ার। কারণ এখানে ছিল ভারতের খ্যাতি নামকরা ক্রিকেটার অজিঙ্কা রাহানে, সূর্যকুমার যাদব, পৃথ্বী শ্ব মতো খেলোয়াড়রা আর যেখানে এরকম খেলোয়াড় মজুদ রয়েছে সেই টিম তো মজবুত হবে তা বলায় যেতে পারে,তবে এইদিন লক্ষ্য করা গেল এক অন্যরকম ঘটনা যেখানে এই পরিপক্ক ব্যাটসম্যানদের এক অপরিচিত বলার এসে তাসের ঘরের মতো ধ্বংস করে দেয়।

যেমনটা আমরা জানিয়ে রঞ্জি ট্রফি তে ভারতের সুনাম খেলোয়াড় থেকে শুরু করে সিনিয়র খেলোয়াড় থেকে শুরু করে জুনিয়ররা পর্যন্ত নিজেদের কলা-কৌশল দেখানোর জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করে। আর এই দিন এই মাঠে দেখা মেলে এক অপরিচিত বোলারের যিনি মুম্বাইয়ের মতো রঞ্জির সবচেয়ে খতরনাক দলের ব্যাটিং পারি কে দুই ঘণ্টায় শেষ করে দিয়েছেন। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে প্রথম দিন মুম্বাইয়ে মত মজবুত দলকে সহজেই দাবিদার মনে হচ্ছিল রঞ্জি ট্রফির জন্য গত বুধবার দিন শুরু হয়েছে এই রঞ্জি ট্রফির লিগ ম্যাচ।

এইদিন রেলওয়ে এক অপরিচিত পেশার বলারের সামনে প্রথম ইনিংসে মুম্বাই টিম বিধ্বস্ত হয়ে গিয়েছে।যেখানে মুম্বাইয়ের প্রথম ইনিংসে 114 রানে অলআউট করে দিয়েছিল অজিঙ্কা রাহানে, পৃথ্বী শ্ব, সুর্যাকুমার যাদব, আর সিদ্বেশ ল্যাডের মত সজ্জিত ক্রিকেটারদের। এই অজ্ঞাত বোলার টি প্রদীপকে এর আগে কর্নাটক প্রিমিয়ার লিগ অর্থাৎ কেপিএল এলে সুযোগ দেওয়া হয়েছিল যেখানে তিনি তার প্রতিভা প্রদর্শন করেছিলেন তারপর তাকে এবার রেলওয়ে নিজেদের দলে সুযোগ দিয়েছে। এটি তার দ্বিতীয় প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ। এইদিন মুম্বাইয়ের প্রথম ইনিংসে অসাধারণ বোলিং এর প্রদর্শন দেখিয়ে অজিঙ্কা রাহানের মতো প্রতিভাশালী বড়ো ক্রিকেটার কে 5 রানে, পৃথ্বী শ্ব 12 রানে, জয় বিস্ত 21 রানে, আদিত্য তারে 4 রানে,আর সূর্যকুমার যাদব 39 রান করতে পেরেছিলেন।