ক্রমশ বাড়ছে চিন্তা! করোনার দক্ষিণ ভারতীয় প্রজাতি ডবল মিউট্যান্টের চেয়েও ১৫ গুণ বেশি প্রাণঘাতী

করোনা মহামারী শুরুর পর থেকেই  প্রথমে কেরলে নতুন প্রজাতির খোঁজ মিলছিল৷ তারপর সমগ্র দক্ষিণ ভারতে তা ছড়িয়ে পড়ে৷  করোনার দক্ষিণ ভারতীয় প্রজাতি ডবল মিউট্যান্টের চেয়েও ১৫ গুণ বেশি প্রাণঘাতী। করোনার দক্ষিণ ভারতীয় ভ্যারিয়ান্ট নাম দিয়েছিলেন গবেষকরা৷ ব্রিটেন স্ট্রেন ভারতে চলে আসায় এই প্রজাতি কিছুটা দুর্বল হয়৷ কিন্তু সেন্টার ফর সেলুলার অ্যাণ্ড মলিকিউলার বায়োলজির গবেষক জানাচ্ছেন দক্ষিণ ভারতীয় ভ্যারিয়ান্ট এখন ১৫ গুণ বেশি সংক্রামক ও প্রাণঘাতী৷ সার্স কভ ২ ভাইরাসের ডবল মিউট্যান্ট ভ্যারিয়ান্টের চেয়েও বেশি ছোঁয়াচে N440K

 

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ উপস্থিত হওয়ায় এর মিউটেশন শুরু হয়েছে৷ দক্ষিণ ভারতের একাধিক কোভিড পজিটিভ রোগীদের নমুনায় এই প্রজাতির দেখা মিলেছে৷ আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে অন্তত ২০% এর মধ্যে এই নতুন প্রজাতির সন্ধান মিলেছে৷  এই মুহূর্তে মহারাষ্ট্র সহ দক্ষিণ ভারতের চার রাজ্যে এই ভ্যারিয়ান্ট ছড়িয়ে পড়েছে৷ সিসিএমবির বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন, ফেব্রুয়ারিতে মহারাষ্ট্রে করোনার ডবল মিউট্যান্ট স্ট্রেন পাওয়া গিয়েছিল৷

মহারাষ্ট্রে আক্রান্ত ২০০ জনের মধ্যে প্রায় ৪২% এর মধ্যে এই ডবল মিউট্যান্ট প্রজাতির সন্ধান মেলে।  পশ্চিমবাংলাতেও করোনা রোগীদের প্রায় ২৮ শতাংশ এর মধ্যে পাওয়া গিয়েছিল এই ডবল ভ্যারিয়ান্ট৷

বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের মামলা

কিন্তু বিজ্ঞানীদের দাবি,  ডবল ভ্যারিয়ান্ট এর চেয়েও N440K এর মিউটেশন এত দ্রুত হচ্ছে যে এটা মারাত্মক প্রাণঘাতী।  করোনার প্রথম দিকের ভ্যারিয়ান্টগুলোর চেয়ে এটা অত্যধিক বেশি ছোঁয়াচে।  করোনার A3I স্ট্রেনের থেকে প্রায় হাজার গুণ বেশি সংক্রামক N440K.