করোনার DELTA PLUS প্রজাতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে বেশি সক্ষম COVAXIN, দাবি ICMR এর

দীর্ঘ দেড় বছর ধরে সমগ্র বিশ্ব অনুভব করছে করোনার মহামারীর। করোনার একের পর এক প্রজাতি রীতিমতো সমগ্র বিশ্বে মৃত্যু মিছিল অব্যাহত রেখেছে। করোনার ডেল্টা প্লাস ভেরিয়েন্ট বর্তমানে ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল এন্ড রিসার্চের সম্প্রতি একটি গবেষণাপত্র জানিয়েছে করোনার ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট রুখতে COVAXIN অনেক বেশি কার্যকরী।

BIORXIV তে সম্প্রতি প্রকাশ হয়েছে আইসিএমআর এর গবেষণা পত্রটি। গবেষণাপত্রে জানানো হয়েছে কোভিডের ডেল্টা প্লাস ভ্যারিয়েন্ট এ আক্রান্ত হওয়া রোগীদের ক্ষেত্রে ৭৭.৮ শতাংশ কার্যকারী COVAXIN আবার উপসর্গহীন রোগীদের ক্ষেত্রে ৬৫.২ শতাংশ কাজ করছে COVAXIN। সামান্য ০.৫ শতাংশ রোগীর ক্ষেত্রে এই টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে।

ভারতে করোনাভাইরাস এর তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়া একরকম সময়ের অপেক্ষা মাত্র এমনটাই দাবি করছেন চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা। এমনকি এই বছরের ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত তৃতীয় ঢেউ এর প্রভাব থাকবে বলে ইতিমধ্যেই সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে।গত সোমবার স্বাস্থ্যমন্ত্র কে দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪০ হাজার ১৩৪ জন অন্যদিকে মৃত্যু-মিছিল অব্যাহত মৃত্যু হয়েছে ৪২২ জনের। গত রবিবার মৃত্যুর সংখ্যা ছিল প্রায় ৫০০ এর কাছাকাছি, সেই তুলনায় সোমবার অনেকটাই নেমেছে গ্রাফ। অন্যদিকে একদিনে করোনা মুক্ত হয়েছেন ৩৬ হাজার ৯৪৬ জন।

করনা মহামারীর রুখতে টিকার ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্ব পূর্ণ হতে চলেছে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।ইতিমধ্যেই ভারতে প্রায় ৪৭ কোটি ২২ লক্ষ ২৩ হাজার ৬৩৯ জনের কোভিড টিকা সম্পূর্ণ করা হয়েছে। ভারতে COVISHEILD , COVAXIN SPUTNIK-V টিকা দেওয়া হচ্ছে। তবে ভারতে মূলত COVISHEILD , COVAXIN ভ্যাকসিন দুটির নেওয়ার প্রবণতা বেশি বলে জানা গেছে।

যদি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল এন্ড রিসার্চের সম্পত্তি গবেষণাপত্র কথা সঠিক হয় তাহলে ভারত বায়োটেকের COVAXIN এর গুরুত্ব সর্বত্র বাড়তে চলেছে বলে মত চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের।