গল্প লাগলেও সত্যি!ব্যাঙ্কের সার্ভারে প্রবলেম কোটিপতি হয়ে ৫ দিনে ৭৬ লক্ষ টাকা ওড়ালেন দম্পতি

গল্প হলেও সত্যি!! যেখানে ব্যাঙ্কের মেসেজ এলেই আমাদের বুক ধড়ফড় করতে শুরু করে দেয়, এই বুঝি আমাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা কেটে নিলো। সেখানে শুধুমাত্র ব্যাঙ্কের একটি ভুলের জন্য লখনৌর এক দম্পতি হয়ে গেল কোটিপতি। কি হয়েছিল? চলুন জেনে নেওয়া যাক। লখনৌর এক দম্পতির ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ছিল ১৯৮৩ টাকা। এটা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। অস্বাভাবিক ব্যাপারটি হলো, ওই দম্পতির অ্যাকাউন্টে হঠাৎ করে বিপুল অঙ্কের টাকা ঢুকে গিয়েছিল, যা দেখে রীতিমত হতভম্ব হয়ে যান ওই দম্পতি।

আচমকাই প্রায় কোটি টাকার বেশি টাকার মালিক হয়ে যান ওই দম্পতি। আচমকাই এত বিশাল পরিমাণ টাকা দেখে হতভম্ব হয়ে পড়েন তাঁরা। তবে এই বিষয়টি ধামাচাপা দেবার জন্য পেশায় পেট্রোল পাম্পের কর্মচারী করণ শর্মা কাউকে কিছু জানানোর প্রয়োজন বোধ করেনি। বরং রাতারাতি কোটিপতি হয়ে দেদার কেনাকাটা শুরু করে দেন তিনি, যেটা কাল হয়ে দাঁড়ায় ওই দম্পতির জন্য।

জানা গেছে, তড়িঘড়ি টাকা শেষ করার জন্য ওই ব্যক্তি স্ত্রীর জন্য একটি বিলাসবহুল গাড়ি সহ বাইক এবং কয়েক লক্ষ টাকার গয়না কিনে এনেছিলেন। না চার-পাঁচ দিনের মধ্যে ৭৬ লক্ষ টাকার কেনাকাটা করে ফেলেন ওই ব্যক্তি। অন্যদিকে হঠাৎই একটি অ্যাকাউন্ট থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা লেনদেন হওয়াই স্বাভাবিক ভাবে সন্দেহ হয় ব্যাঙ্ক কর্মীদের। তদন্ত করে তারা জানতে পারেন,প্রযুক্তিগত সমস্যার কারণে ব্যাঙ্কের সরকারের সঙ্গে ওই ব্যক্তির কার্ড লিঙ্ক করা হয়ে রয়েছে। যা দিয়ে মনের আনন্দে কেনাকাটা করছেন ওই দম্পতি।

 

এই ঘটনার পর ব্যাঙ্ক আধিকারিকরা পুলিশের কাছে দ্বারস্থ হন। এই প্রসঙ্গে পুলিশ আধিকারিক অজয় প্রতাপ সিং জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তি একটি পেট্রোল পাম্পে কাজ করেন। হঠাৎ করে ১৭ ডিসেম্বর যখন তিনি ডেবিট কার্ড দিয়ে কিছু কেনাকাটা করেন তখন জানা যায় তাঁর অ্যাকাউন্টে রয়েছে এক কোটি টাকার বেশি টাকা। ওই টাকা দিয়ে তিনি যথেষ্ট কেনাকাটা করতে শুরু করে দেন। গাড়ির পাশাপাশি বাইক এবং সোনা কেনেন তিনি।

শুধু তাই নয়, পেট্রলপাম্পে জ্বালানি কেনার জন্য আগেভাগে আড়াই লক্ষ টাকা অগ্রিম দিয়ে রেখেছিলেন তিনি। এইভাবে পাঁচ দিনের মধ্যে ৭৬ লক্ষ টাকা খরচ করে ফেলেন করন। অবশেষে ব্যাঙ্ক ম্যানেজারের করা অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ব্যক্তি এবং তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়।