নতুন খবরবিশেষ

“করোনা ভাইরাস ল্যাবেই তৈরি, প্রমাণ আছে আমার কাছে”, দাবি চীনা ভাইরোলজিস্টের…

গোটা বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি আকার ধারন করার আগে থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দাবি করে আসছিল করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পেছনে চীনের ভূমিকা রয়েছে। আর আবারো ট্রাম্প প্রশাসনের সেই দাবিকে আরো একবার জোরালো করল চীনের উহান ল্যাবের এক ভাইরোলজিস্ট লি মেং ইয়ান। তিনি দাবি করেছেন, চীনের ল্যাবেই তৈরি করা হয়েছে করোনাভাইরাস। এটি মানুষের তৈরি বলে তার কাছে 100 শতাংশ তার প্রমাণ রয়েছে। হংকংয়ে কর্মরত ওই ভাইরোলজিস্ট দাবি করেন সেই নজরদারির সময় একটি গোপন অভিযানের হদিশ পান তিনি।

 

একইসঙ্গে তিনি জানান,জনসমক্ষে ঘোষণা করার আগে থেকেই করোনার সংক্রমণের বিষয়ে জানত চীনা সরকার। তবে এখানেই শেষ না তার দাবি, বছরের শুরুতেই তাকে চীন তাকে হত্যা করতে চেয়েছিল বলে ভয়ে যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে যান তিনি। এবার ব্রিটিশ একটি টক-শোতে হাজির হয়ে তিনি নতুন করে এই দাবি করেছেন। তিনি বলেছেন, ভাইরাসটি চীনের ল্যাব থেকেই ছড়িয়েছে আর সেই ল্যাব নিয়ন্ত্রণ করে থাকে চীনের সরকার।অন্যদিকে চীনের দাবি উইহানের একটি স্থানীয় বাজার থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে, কিন্তু সেই কথা অস্বীকার করে তিনি জানিয়েছেন সেখানকার স্থানীয় চিকিৎসকদের সাথে তিনি কথা বলে এই বিষয়ে প্রমাণ পেয়েছেন এবং জানতে পেরেছেন এই ভাইরাস চীনে ইচ্ছাকৃত ভাবে তৈরি করা হয়েছে।

ভাইরোলজিস্ট লি মেং ইয়ান আরো বলেন যে তিনি আশা করেছিলেন চীনা সরকার এবং হু এর তরফে এই বিষয়ে ঠিক কাজ করা হবে, তবে সে কাজ করা হয়নি উল্টো তাকে চুপ থাকতে বলা হয়েছিল না হলে তাকে গায়েব করে দেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয়েছিল। যদিও চীনে তা খুবই স্বাভাবিক বলে দাবি করেন এই ভাইরোলজিস্ট।তিনি বলেন, ‘কেউ জবাব দেননি। মানুষ সেখানকার সরকারকে ভয় পায় এবং সুরক্ষিত হওয়ার জন্য আরও সুযোগ- সুবিধা- সহ সরকার এবং হু’র সঙ্গে মিলিত হওয়ার অপেক্ষা করছেন তাঁরা। কিন্তু এটা অত্যন্ত জরুরি ছিল।

ভাইরোলজিস্ট জানান, চীনা নববর্ষের সময় চীন থেকে সারা বিশ্বেই বিভিন্ন জিনিসপত্র পাঠানো হয়। তাই সে বিষয়ে মুখ খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তিনি। কারণ এই করোনাভাইরাস অত্যন্ত সংক্রামক ও ভয়ানক ভাইরাস মানুষ ও বিশ্বব্যাপী স্বাস্থ্যের জন্য।তবে সত্যি সামনে আনার জন্য তাকে মাশুলও গুনতে হচ্ছে অনবরত তাকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে প্রাণনাশের। এর আগে তিনি এই দাবি করেছিলেন যেখানে করোনা সংক্রমণ নিয়ে মিথ্যা কথা বলেছে চীন, সেই দেশ আগেই জানতে পেরেছিল মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে তাও তারা সেই রোগের ব্যাপারে সঠিক তথ্য প্রদান করেনি বিশ্বকে।

Related Articles

Back to top button