সত্যিই কী করোনা বায়ুবাহিত রোগ? বাতাসে কী বেঁচে থাকে করোনা জীবনু? ব্যাখ্যা দিলেন WHO এর চিফ সায়েন্টিস্ট…

এই মুহূর্তে গোটা বিশ্ব জুড়ে চলছে করোনা ভাইরাসের তাণ্ডব আর ভারতেও এই করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে প্রায় 8 লাখ,তবে এর মধ্যে সুখবর হল ভারতে এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা এত বেশি হওয়ার পাশাপাশি সুস্থতার হারও অনেক বেশি অন্যান্য দেশের তুলনায়। এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরও প্রায় 5 লক্ষ মানুষ আপাতত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরছেন। আর আপাতত ভারতে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছে 21623 জন। তবে গত কয়েক দিন ধরে একটি খবর সাধারণ মানুষের উদ্বেগ আরও বেশি বাড়িয়ে দিয়েছে। যেখানে 32 টি দেশের 230 জন বিজ্ঞানী জোর গলায় জানিয়েছেন করোনা ভাইরাস একটি বায়ুবাহিত রোগ অর্থাৎ বাতাস থেকে ছড়াতে পারে নাকি এই ভাইরাস।

তারপরে এই নতুন তথ্য নিয়ে শুরু হয়েছে জোরদার জল্পনা তবে কী ভয় বাড়ছে আরো? আর এবার এই বিষয় নিয়ে মুখ খুললেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চিফ সাইন্টিস্ট সৌম্যা স্বামীনাথন। আর এই বিজ্ঞানীদের তরফ থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে করোনাকে বায়ুবাহিত রোগ বলার পাশাপাশি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কে নিজেদের নির্দেশিকা পাল্টানো আর্জি জানানো হয়। আর তারপরে এই বিষয়টি নিয়ে খতিয়ে দেখতে শুরু করে হু। এখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চিফ সাইন্টিস্ট সৌম্যা স্বামীনাথন জানিয়েছেন খুব অল্প কিছু ক্ষেত্রে করোনার জীবনু বাতাসে বেঁচে থাকতে পারে এক্ষেত্রে সংক্রমণ ঘটাবার ও আশঙ্কা রয়েছে।

এই যে আমরা কথা বলছি শ্বাস-প্রশ্বাস নিচ্ছি এর মাধ্যমে মুখ থেকে অসংখ্য ছোট ছোট জলের ফোঁটা নির্গত হয় যাদের আকার ভিন্ন ভিন্ন রকমের। আর এক্ষেত্রে যে জলে ফোটা গুলি বড় হয়ে থাকে সেগুলি 1 থেকে 2 মিটারের মধ্যে মাটিতে পড়ে যায় তাই সোশ্যাল ডিস্ট্যান্স বোঝায় রাখার কথা বারবার বলা হচ্ছে বার বার। এক্ষেত্রে যেগুলির আকার অপেক্ষাকৃত ছোট অর্থাৎ 5 মাইক্রোনের থেকে ছোট যে কণাগুলি রয়েছে সেগুলিকে বলা হয়ে থাকে এরোসল, আর এক্ষেত্রে সেগুলি বাতাসে কিছু সময় বেঁচে থাকতে পারে মাটিতে পড়তে এগুলি একটু বেশি সময় নিয়ে থাকে।

তাই এক্ষেত্রে কেউ যদি প্রশ্বাসের মাধ্যমে সেগুলি গ্ৰহন করে ফেলে তাহলে কিন্তু সংক্রমণ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।তাই তার ব্যাখ্যা দ্বারা এটাই স্পষ্ট হয়ে গেছে যে মুখ থেকে নির্গত হওয়া যেসব ছোট ছোট জলের কণাগুলি রয়েছে সেগুলি বাতাসের মধ্যে 10 থেকে 15 মিনিট ভেসে থাকতে পারে আর সেক্ষেত্রে যদি কোন ব্যক্তি সেখানে এসে শ্বাস-প্রশ্বাস নিয়ে থাকে তাহলে করোনা আক্রান্তের যে আশঙ্কা রয়েছে সেটি উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না এক্ষেত্রে। যদিও এক্ষেত্রে হু পষ্ট ভাবে এই ভাইরাসকে বায়ুবাহিত রোগ বলতে রাজি নয় তবে বায়ু বাহিত সংক্রমণ হতে পারে বলে মনে করছেন তারা।

আরও পড়ুন :