গ্রাহকদেরকে পেট্রোল পাম্পে হতে হবে না প্রতারণার শিকার, প্রতারণা রুখতে বড় সিদ্ধান্ত ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশনের

করোনা মহামারীর মধ্যে দিনের পর দিন বেড়ে চলেছে ডিজেল ও পেট্রোলের দাম। ইতিমধ্যেই পেট্রোল ১০০ টাকা ছাড়িয়ে গেছে ডিজেল ও প্রায় ১০০ টাকা পৌঁছতে চলেছে খুব শিগগিরই। এই আকাশ ছোঁয়া মূল্যবৃদ্ধির ফলে সাধারণ মানুষ অবস্থা খুবই খারাপ। বাইরে বেরোলেই দিতে হচ্ছে মোটা অংকের বাড়তি খরচ। তাই একদিকে যেমন পেট্রোলের দাম চিন্তা বাড়াচ্ছে মানুষের, তেমনি অন্যদিকে আরেকটি বড় চিন্তার বিষয় হল পেট্রোল পাম্পে বিভিন্ন রকম প্রতারণা।

আবার অনেক সময় এই ঘটনা প্রকাশ এসেছে যেখানে পেট্রোল পাম্পের মালিকেরা কারচুপি করে গ্ৰাহকদেরকে তাদের টাকার পরিমান মতো পেট্রোল দেয় না, তবে এখন যে হারে পেট্রোল-ডিজেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে তাতে যদি কোনো গ্ৰাহককে এরকম প্রতারণার শিকার হতে হয় তাহলে বড় সমস্যায় পড়তে হচ্ছে, তাই এইসব প্রতারণার কথা মাথায় রেখেই এবার ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশন লিমিটেড (IOCL) সংস্থার তরফ থেকে বড় কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

এখানে তাদের তরফে জানানো হয়েছে দেশের গ্ৰাহকেরা যাতে এরকম কোন প্রতারণার শিকার না হন তার জেরে দেশের প্রায় ৩০ হাজার পেট্রল পাম্পকে আগামী দিনে অটোমেটিক করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে এই সংস্থা। অর্থাৎ এর ফলে কেন্দ্রীয় কমিটির দ্বারা সমস্ত পেট্রল পাম্প গুলিকে অটোমেটিক করা হবে, যাতে গ্রাহকদের সাথে কোন পাম্প মালিক কোনও রকম কারচুপি না করতে পারে। এই বিষয়ে ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশন লিমিটেড (IOCL) এর তরফ থেকে একটি টুইট ও করা হয়েছে যেখানে তারা লিখেন , আমরা সকল গ্রাহকদের একথা জানাতে পেরে গর্ববোধ করছি গোটা ভারত জুড়ে ইন্ডিয়ান অয়েল প্রায় 30 হাজার পেট্রোল পাম্প এখন থেকে অটোমেটিক করে দেওয়া হয়েছে।

পেট্রোল পাম্পের সার্ভারের মাধ্যমে রিয়েল টাইম মনিটরিং করে সব সময় দেখা হবে যেখানে গ্রাহকেরা নির্দিষ্ট মূল্য দিয়ে নির্দিষ্ট পরিমাণ তেল পাচ্ছেন কিনা? এও দেখা হবে যাতে প্রতিটি ডিসপেন্সার থেকে ডেলিভারি শূন্য থেকে শুরু হয়।” তাই এ কথা বলা বাহুল্য যে প্রতিবার যদি এক্ষেত্রে মিটার শূন্য একে শুরু হয় তাহলে এক্ষেত্রে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণার পরিমাণ হ্রাস পাবে। তাছাড়া ইন্ডিয়ান অয়েল এর এই যে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে সেটি গ্রাহকদের মধ্যে আগামী দিনে বিশ্বাস বেড়াবে শুধু তাই নয় এর ফলে গ্রাহকদের সাথে সংস্থা স্বচ্ছতা বজায় থাকবে।