ক্রমশ শক্তি বাড়িয়ে এবার ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ, আবহাওয়া দপ্তরের তরফে জারি সতর্কবার্তা

ঘূর্ণিঝড় যেন নিত্যদিনের একটি ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে আমাদের জীবনে। ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে আরো একটি ঘূর্ণিঝড়ের পূর্বাভাস দিল আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।আন্দামান সাগরে এবং বঙ্গোপসাগরে ২৯ নভেম্বর থেকে একটি নিম্নচাপের সৃষ্টি হয়েছে যার ফলে ইতিমধ্যেই রাজ্যের বেশ কয়েকটি জেলায় বৃষ্টিপাত শুরু হয়ে গেছে। তবে এই নিম্নচাপ শক্তি বাড়িয়ে অদূর ভবিষ্যতে ঘূর্ণাবর্তে পরিণত হবে বলে জানানো হয়েছে মৌসম ভবন থেকে। সেই ঘূর্ণাবর্তের প্রভাব পড়বে অন্ধ্রপ্রদেশ এবং উড়িষ্যা উপকূলে। এই সাইক্লোনের প্রভাবে প্রবল বৃষ্টিপাত হতে পারে পশ্চিমবঙ্গে।

পরিস্থিতি জটিল হলে ভয়ঙ্কর সাইক্লোনের পূর্বাভাস একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। তবে সাইক্লোনের কথা শুনলেই মনে পরে যায় আগের দুর্বিষহ ভয়ঙ্কর রাতের কথা। এই ঘুর্ণিঝড়ের নাম রাখা হয়েছে জাওয়াদ। ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ করেছে সৌদি আরব। পরবর্তী সাইক্লোনের নাম রাখা হবে আসানি, যার নামকরণ করেছে শ্রীলঙ্কা।

এই নিয়ে ১৬৯ ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ করা হয়েছে। একবার কোন নাম ব্যবহার করা হলে দ্বিতীয় বার সেই নাম ব্যবহার করা হয় না। বিশ্বের ১৩ টি দেশ এই নামকরণ করে। দেশগুলির মধ্যে রয়েছে ভারত বর্ষ, ইরান,মালদ্বীপ,বাংলাদেশ,মায়ানমার, পাকিস্তান, কাতার, সৌদি আরব, ওমান, শ্রীলংকা, থাইল্যান্ড, ইয়েমেন, সংযুক্ত আরব আমিরশাহী।

সাধারণত অক্টোবর-নভেম্বর মাসে উত্তাল হয় বঙ্গোপসাগর। কিন্তু এই বছরে নভেম্বর মাসে কোন ঘূর্ণিঝড়ের দেখা পাওয়া যায়নি। গত সেপ্টেম্বর মাসের শেষের দিকে দক্ষিণবঙ্গ জুড়ে বৃষ্টি হয়েছিল। ফের শনিবার থেকে পরিস্থিতি বদল হতে শুরু করবে এবং ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে ঘূর্ণিঝড়ের মুখোমুখি হতে হবে উড়িষ্যা ও অন্ধ্র উপকূলকে।