মুখ্যমন্ত্রীর নয়া প্রকল্প ‘ডু ইট নাও’, মাত্র ১৫ দিনের মধ্যেই মিলবে ট্রেড লাইসেন্স, মিউটেশন সহ বিল্ডিং প্ল্যানের সুবিধা

কন্যাশ্রী, যুবশ্রী, রূপশ্রী এবং আরও অন্যান্য প্রকল্পের পর আমাদের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরও একটি প্রকল্পের সুবিধা আমাদের সামনে তুলে ধরেছেন। যেটির নাম ‘ডু ইট নাও’ এই প্রকল্পের মাধ্যমে আপনার ট্রেড লাইসেন্স, বিল্ডিং প্ল্যান অথবা মিউটেশনের ছাড়পত্র খুব সহজেই এবারে আপনাদের পরিষেবা দেবে। মাত্র ১৫ দিন এর মধ্যে পেয়ে যাবেন আপনারা আপনাদের বিল্ডিং প্ল্যান, ট্রেড লাইসেন্স, মিউটেশন ছাড়পত্র।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে আপনারা আবেদন করার মাত্র ১৫ দিনে পাবেন সমস্ত কিছু। এর আগে এই পরিষেবা গুলি নিতে গেলে অনেকটা সময় লাগতো সাথে ছিল আইনি ব্যবস্থা। মানুষের হাতে এখন সময় অনেকটাই কম সাথে এই সমস্ত বিষয়ের ঝামেলা তাই এর সমাধান করতেই মুখ্যমন্ত্রীর এই ভাবনা।

সোমবার একটি ভার্চুয়াল মিটিং এর মাধ্যমেই এই নতুন পরিষেবার বিষয়ে ঘোষণা করলেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। এর আগে এই পরিষেবা চালু করার জন্য সাধারণ মানুষেরা নবান্নে বহু লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তাদের কথা ভেবেই এই অভিনব উদ্যোগ নিল রাজ্য সরকার।

অমিত মিত্র ঘোষণা করেছেন এবার থেকে একদম ঝামেলা ছাড়াই মানুষ ১৫ দিনে পেয়ে যাবেন তাদের এই পরিষেবা। এবার থেকে অনলাইন এর মাধ্যমেই মানুষ আবেদন করতে পারবেন। সেখানে থাকবে মোট ৩ টি অপশন। ই-মিউটেশন, ই-ট্রেড লাইসেন্স ও সর্বশেষ ই-গৃহনকশা। এখানে আপনারা করতে পারবেন আবেদন।

আবেদন করার ১৫ দিনের মাথায় আপনি পরিষেবা না পেলে সেখানে আপনি জানাতে পারবেন আপনার অভিযোগ। তবে এই বিষয় ঘোষণা করার পর অনেক মানুষই এই পরিষেবা নিয়ে মুখ খুলেছেন। অনেক মানুষই বলছেন মুখ্যমন্ত্রীর এই ‘ডু ইট নাও’ এই প্রকল্প চালুর উদ্যোগ নিয়েছিলেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। তবে তিনি তার সময়ে এই পরিষেবা চালু করতে পারেননি।

এই পরিষেবা দেওয়া, বা অনলাইন এর মাধ্যমে এই পরিষেবার আবেদন করার সমস্ত পরিকল্পনাই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য এর ছিল, তার সেই বিষয়কেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাস্তবে রূপান্তরিত করলেন। বহু দিন ধরেই এই পরিষেবা নিয়ে অনেক বৈঠক কথাবার্তার পর সোমবারের বৈঠকে অমিত মিত্র এই পরিষেবার অনলাইন পোর্টাল লঞ্চ করলেন।