নবম থেকে দশম শ্রেণীর পড়ুয়াদের ক্লাস করানো হবে দূরদর্শনে, Whatsapp-এ পাঠানো হবে প্রশ্নপত্র..

করোনার  সংক্রমণকে আটকানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঘোষণায় গোটা দেশজুড়ে চলছে 21 দিনের লকডাউন। ফলে রাজ্যের সমস্ত স্কুল- কলেজের পঠন পাঠান আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে। এর ফলে রাজ্য সরকারের তরফ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে আগামী শিক্ষাবর্ষের প্রথম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের উত্তীর্ণ করতে হবে। কিন্তু নবম এবং দশম শ্রেণীর ক্ষেত্রে তা করছে না রাজ্য সরকার। এই দুটোর শ্রেণীর জন্য রাজ্য সরকারের তরফ থেকে ভার্চুয়াল ক্লাসের ব্যবস্থা করেছে।

এই প্রসঙ্গ নিয়ে গতকাল শুক্রবার দিন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, আগামী 7 থেকে 13 এপ্রিল পর্যন্ত বিকেল চারটা থেকে পাঁচটা দূরদর্শনে বিভিন্ন বিষয়ের ক্লাস করাবেন শিক্ষকেরা। শুধু ওয়েস্ট বেঙ্গল বোর্ড নয় প্রথম শ্রেণী থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পাশ করানোর সিদ্ধান্ত নিল আইসিএসসিই বোর্ডও। এর আগে CBSE বোর্ডের তরফ থেকেও একই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, রাজ্য সরকারের ‘বাংলার শিক্ষা’ পোর্টালে গিয়ে ছাত্রছাত্রীরা ই-মেল করে, ফোনে করে বা হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ক্লাস চলাকালীন যেকোন প্রশ্ন করতে পারে।

রাজ্য সরকারের তরফ থেকে দেওয়া এডুকেশন হেল্পলাইন নম্বরটি হলো 18001037033 । এ নিয়ে পার্থ বাবু আরো বলেন, ক্লাস এইট পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রী দের হোম ওয়ার্ক দেওয়া হবে ক্লাস চলাকালীন। বাংলা শিক্ষা পোর্টাল এর বিষয় অনুসারে ছাত্র-ছাত্রীদের হোম ওয়ার্ক দেওয়া হবে। স্কুল খোলার পর শিক্ষকদের সেই হোমওয়ার্ক দেখাতে হবে। অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পাশ-ফেল তুলে দেওয়াই অনেকে মনে করেছেন এর ফলে ছাত্রছাত্রীদের পড়ার আগ্রহ আর থাকবে না। কারণ তারা জানে যেমনই হোক আমরা পরের ক্লাসে উত্তীর্ণ হয়ে যাব।

এর জন্যই হোম ওয়ার্কের কথা ভেবেছে রাজ্য সরকার। নবম এবং দশম শ্রেণীর ছাত্র ছাত্রীরা ই-মেল এবং হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে প্রশ্ন করতে পারেন। বাংলা শিক্ষা পোর্টাল হোয়াটসঅ্যাপ নাম্বার এবং ইমেল আইডি দেওয়া হবে। করোনাভাইরাস এর জেরে আগামী 15 ই এপ্রিল পর্যন্ত রাজ্যের সমস্ত স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা চলতে চলতে মাঝপথে স্থগিত রেখে দিতে বাধ্য হয় সরকার। এ নিয়ে 15 এপ্রিলের পর নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

Related Articles

Close