পাসপোর্ট-আধার-ভোটার-এ নাগরিকত্ব প্রমাণ নয়, প্রয়োজন জন্ম নথিপত্রের

নাগরিকত্ব আইন এর প্রতিবাদে সারা দেশজুড়ে বিক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে। এ নিয়ে সরকার সাধারণ মানুষদের বোঝানোর চেষ্টা করেছেন কিন্তু বিক্ষোভ থামেনি কোন জায়গাতে। এমনকি এই বিক্ষোভ শান্ত করার জন্য পিআইবি নাগরিকত্ব আইন সংক্রান্ত কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন এবং তা সোশ্যাল মিডিয়ায় তা প্রকাশও করেছেন। সেখানে বহুবার আধার কার্ড বা ভোটার কার্ডের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। আর তাই মনে করা হচ্ছে এই সমস্ত নথি গুলিকে নাগরিকত্বের প্রমাণ হিসেবে দেখতে চাইবে সরকার।

কিন্তু এই বিষয়টি সম্পর্কে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কর্তারা। তারা স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেন ভোটার কার্ড, প্যান কার্ড, আধার কার্ড বা পাসপোর্ট এইগুলি কোনটাই নাগরিকত্বের পরিচয় হিসেবে গ্রহণ করা হবে না। উপরের প্রত্যেকটি বসবাসের শংসাপত্র।  স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কর্তাদের মুখ থেকে এই তথ্যগুলি পাওয়ার পরে চারিদিক থেকে প্রশ্ন উঠছে। প্রশ্ন একটাই উঠছে যে, নাগরিকত্ব প্রমাণ করার জন্য কী লাগবে তাহলে? কোন নথি সরকার গ্রহণ করবে।

এর পাশাপাশি প্রশ্নও উঠছে অসম এনআরসি এবং বাকি দেশের এনআরসি যদি আলাদা হয় তাহলে কাট অফ বছর হিসেবে সরকার কোন সালকে ধরবে? এই সম্পর্কে আদালত বলছে, আধার কার্ড বা ভোটার কার্ড কোনটাই নাগরিকত্বের প্রমাণ হয় না। কয়েকদিন আগে এক অনুপ্রবেশকারী বিষয়ক মামলায় মুম্বাইয়ের এক নিম্ন আদালত রায় দেয় যে, প্যান কার্ড ও আধার কার্ডের মত নথি ভারতের নাগরিকত্ব প্রমাণ করার জন্য কখনোই যথেষ্ট নয়। এবং আদালতেও জানিয়েছেন যে, নাগরিকত্ব প্রমাণ করার জন্য জন্মের নথিপত্র, জন্মস্থান, বাবা মায়ের জন্মস্থান এবং নাগরিকত্বের পরিচয় পত্র দরকার।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কর্তারা এও জানিয়েছেন যে, নাগরিকত্ব আইন এর 14 এ ধারায় নাগরিক পরিচয় পত্র তথা কার্ডের উল্লেখ করা রয়েছে। এবং এই কার্ড ইস্যু করা হবে একমাত্র জাতীয় নাগরিকপঞ্জি ইস্যু হওয়ার পর। এবং এনআরসিতে যাদের নাম থাকবে তারাই ভারতের নাগরিক পরিচয়পত্র পাবেন। এরপর একটি প্রশ্ন উঠছে যে জাতীয় নাগরিক কারা? এই বিষয়টি সম্পর্কে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কর্তারা জানিয়ে দেন। এনআরসি যদি হয় তাহলে কাট অফ সাল কোনটা হবে?

1987 সালের আগে জন্মগ্রহণ করলে বা কারোর বাবা-মার 1987 সালের আগে জন্মগ্রহণ করলে এই আইন অনুসারে তারা হলেন ভারতীয় নাগরিক। শীর্ষ সরকারি আধিকারিক সারা ভারতবর্ষের উদ্দেশ্যে বলেন যে এনআরসি নিয়ে ভয় পাবার কোন কারন নেই। এবং তিনি এও জানান যে শুধু অসমের ক্ষেত্রে কাট অফ সাল 1971 হবে। নাগরিকত্ব আইন 2004 সালের সংশোধনী অনুসারে যাদের পিতা-মাতা একজন ভারতীয় নাগরিক এবং অন্য জন অবৈধ অভিবাসী তাদেরকেও ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। কিন্তু মনে রাখবেন শুধুমাত্র অসমের ক্ষেত্রে ভারতীয় নাগরিকত্ব শনাক্তকরণের জন্য সালটি ধরা হবে 1971।

Related Articles

Close