নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে বড় বয়ান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের, বললেন ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগ করেন…

বিরোধীদের কড়া সমালোচনার প্রতিবাদের জবাব দিতে গিয়ে নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে কংগ্রেসকে নিশানা দাগলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এই দিন তিনি লোকসভার মঞ্চ থেকে তুলে ধরেন কংগ্রেসেরা ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগ করেছে। তিনি বলেন বিদেশে অত্যাচারিত হচ্ছেন হিন্দু সহ অন্যান্য ধর্মের মানুষেরা তবে ভারতের সংখ্যালঘুরা নিরাপত্তা পেলেও পাকিস্তান ও বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তায় এখনো সুনিশ্চিত করা হয়নি, তাই এই বিল আনতে হয়েছে। এইদিন বিরোধীরা এই বিলের বিরোধিতা করতে গিয়ে 5 ও 14 নম্বর ধারার কথা তোলেন।

তবে অমিত শাহ পাল্টা সংসদে বলেন এই দুই ধারায় কোন রকম ভাবেই ভঙ্গ হচ্ছে না আর নতুন ধারা তৈরিতে কোন বাধা নেই এই দুই ধারার। এদিন অমিত শাহ আরো বলেন যে ইন্দিরা গান্ধীর আমলে এর আগেও বাংলাদেশ থেকে আগত হিন্দুদের এই দেশে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে, এমন কী উগান্ডার মানুষদের ও আশ্রয় দেওয়া হয়েছে তাহলে এখন কেন করা হবে না। দুনিয়ার বিভিন্ন প্রান্তে দেশের এই আইন নিয়ে আলোচনা করা যেতে পারে সংবিধানের 14 নম্বর ধারায় যেখানে সবার জন্য আইনের সমতার কথা বলা হয়েছে তাও এক্ষেত্রে লংঘন হবে না।

এখন লোকসভায় অমিত শাহের এরকম বক্তব্যের পর এই বিলটি গৃহীত হবে কিনা তা নির্ধারিত করা হবে সম্পূর্ণ ভোটাভুটির উপর নির্ভর করেই। আর বলে রাখি এখানে 293-82 ভোটে বিলটি পাশ হয়ে যায়। অন্যদিকে কংগ্রেসের পক্ষে হয়ে সংসদ শশী থারুর বলেন,যারা বিশ্বাস করতেন ধর্মই হবে দেশ গঠনের ভিত্তি তারা পাকিস্তান তৈরি করেছে আর এই বিলটি ধর্মীয় বিভেদ তৈরি করবে। তবে এই প্রবল হট্টগোলের মধ্যে আজ লোকসভায় পেশ করা হল নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলটি যা পেশ করলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

বিলটি পেশ করার আগে বক্তব্য রাখার সময় তার বিরুদ্ধে অনেক তুমুল হৈচৈ শুরু করে দেন বিরোধীরা, এই বিলের বিরোধিতা করেন কংগ্রেস তৃণমূল সহ অন্যান্য রাজনৈতিক বিরোধীদল গুলিও। অন্যদিকে বিরোধীদের এই তুমুল হট্টগোলের জেরে বিলটি পেশ করার আগেই অমিত শাহ বলেন আগে বিলটি পেশ করা হোক তারপর আপনারা নিজেদের মতামত প্রকাশ করবেন। এরই সাথে তিনি আরো বলেন এই নাগরিকত্ব বিলটি 1 শতাংশ সংখ্যালঘু বিরোধী নয়। অন্যদিকে এই বিলের বিরুদ্ধে কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরী ও এদিন বলে উঠেন দেশের সংখ্যালঘুদের টার্গেট করেই তৈরি করা হয়েছে এই নতুন সংশোধনী বিল।

এরই সাথে এই বিলের বিরোধিতা করতে দেখতে পাওয়া যায় আর এস পি সংসদ এনকে প্রেম চন্দন কেউ তিনি বলেন দেশের সংবিধানে আঘাত আনার জন্য তৈরি করা হয়েছে এই বিল।ধর্মের ভিত্তিতে কাউকে যদি দেশের নাগরিকত্ব দেওয়া হয় তাহলে দেশের ধর্মনিরপেক্ষ কাঠামোর ওপর এটা একটা বড় আঘাত হানার মতো ব্যাপার। এরই সাথে অল ইন্ডিয়া মুসলিম লীগ কংগ্রেস ও মিম এই বিলের বিরোধিতা করতে থাকেন। আসাউদ্দিন ওয়েসি বলেন সংবিধানের অবিচ্ছেদ্য অংশ হল ধর্মনিরপেক্ষতা যা এই বিলের মাধ্যমে মানুষের মৌলিক অধিকার হরণ করা হচ্ছে।