Google আর Jio’র চুক্তিতে বিপাকে চায়না কোম্পানি গুলি! ভারতের বাজারে কমবে চীনা ফোনের আধিপত্য

রিলায়েন্স জিও বাজারে আসার পর থেকে টেলিকম দুনিয়ায় প্রতিযোগিতা এক অন্য পর্যায়ে চলে গেছে। রিলায়েন্স জিওর কর্ণধার মুকেশ আম্বানি ইতিমধ্যে একটি বড় ঘোষণা করেন। তিনি জানান গুগল জিও তে 33 হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে চলেছে। তিনি জিও এবং গুগলের অংশীদারের কথা ঘোষণা করেন। এবং তিনি জানান যে গুগোল যে টাকা বিনিয়োগ করছে তাতে জিও এবং গুগল মিলিয়ে সস্তার অ্যান্ড্রয়েড ফোন লঞ্চ করবে। এই ঘোষণার পর স্পষ্টভাবে বোঝা যাচ্ছে যে ভারতের বাজারে ছেয়ে থাকা চীনা কম্পানি গুলি ধাক্কা খাবে।

একেই ভারত-চীনের সংঘর্ষের ফলে চীনা পণ্য বয়কট করার প্রবণতা দেখা দিয়েছে ভারতবাসীর মধ্যে। তাই এই সময় জিও যদি সস্তার অ্যান্ড্রয়েড ফোন বাজারে লঞ্চ করে তাহলে অনেক লাভবান হবে বলে মনে করেছেন বিশেষজ্ঞরা। ইতিমধ্যেই ভারতীয় মোবাইল উদ্যোগ আর বাজারে চীনের কোম্পানিগুলো বেশ প্রভাব বিস্তার করেছে। তাই চীনের প্রভাব বিস্তারকে আটকানোর জন্য জিওর এই দুর্দান্ত পদক্ষেপ। আর ভারতের বাজারে পরিবর্তন আনার জন্য জিও বিখ্যাত।

সম্প্রতি টেলিকম দুনিয়ায় রিলায়েন্স জিও লঞ্চ করার পর থেকে ইন্টারনেট থেকে শুরু করে কলিং পর্যন্ত সমস্ত কিছুর বিপ্লব ঘটে। এবার জিও ভারতীয় বাজারে স্মার্টফোন লঞ্চ করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। আর স্মার্ট ফোন বানাতে গেলে এক অত্যন্ত প্রয়োজনীয় জিনিস হল প্রসেসর। তাই জিও এবং গুগল এই দুই সংস্থা মিলে কোয়ালকমের সাথে অংশিদারিত্ব করছে। স্বাভাবিক ভাবেই জিওর এই ঘোষণার পর থেকেই চীনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি চিন্তিত রয়েছে।

বর্তমানে শাওমি, রিয়েলমি, ওপো, ভিভোর মতন চায়না ব্র্যান্ড বলে ভারতীয় বাজারে ছেয়ে গেছে। এই সংস্থা চীনা সংস্থাগুলি কম দামের মধ্যে স্মার্টফোন লঞ্চ করায় ভারতীয়দের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় স্মার্টফোন হয়ে উঠেছে। কিন্তু জিওর এই ঘোষণার পর কার্যত মাথায় হাত চীনা কোম্পানিগুলির। কারণ তারা ভালোভাবেই জানেন জিও যদি বাজারে কম দামে স্মার্ট ফোন লঞ্চ করে তাহলে দেশের বহু গ্রাহক সেই দিকেই ঝুঁকে পড়বে। ভারত চীনের মধ্যে যে সংঘর্ষ চলছে তাতে অনেকেই চাইছেন যে চীনা পণ্য বয়কট করার। আর এই সময় যদি জিও সস্তার ফোন লঞ্চ করে দেয় তাহলে ওই সমস্ত চীনা কম্পানি গুলি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।