নতুন খবরবিশেষ

চীনের নতুন ফন্দিতে প্রবল চাপে আমেরিকা, দেখুন কি ফন্দি আটলো চীন…

ঋণের ফাঁদে ফেলে প্রতিবেশী দেশগুলোর উপর কব্জা করছে চীন। বেইজিং ও এর মাধ্যমে ধীরে ধীরে আগ্রাসনের দিকে চলা শুরু করে দিয়েছে। আর এখানেই আমেরিকার চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। মার্কিন সিনেটের আর্মড সার্ভিসেস নামক এক কমিটির কাছে বৃহস্পতিবার এই পুরো বিষয়টি নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন মার্কিন জয়েন্ট চিফ অফ স্টাফ এর চেয়ারম্যান জোসেফ ডানফোর্ড। খবর পাওয়া গেছে, চীনের আর্থিক সহযোগিতার ফলে পাকিস্তান বালুচিস্তান প্রদেশের গোয়াদর বন্দর বানাচ্ছে। বন্দর্বান আবার জন্য এবং আরো অন্যান্য কোটার জন্য ইসলামাবাদ চীনের কাছ থেকে এক হাজার কোটি ডলার ঋণ নিয়েছে। ডানফোর্ড বলেছেন, এইভাবে প্রতিবেশী দেশ গুলিকে ঋণের ফাঁদে ফেলে দিয়ে কব্জা করতে উঠে পড়ে লেগেছে চীন।

বেইজিংএর এই ঋণের নীতি গোটা বিশ্বে যে প্রভাব বিস্তার করতে পারে তার সম্ভাবনা তুলে ধরেছেন ডানফোর্ড।চীনের এই ছদ্দবেশী ঋণনীতি সম্পর্কে বলতে গিয়ে শ্রীলংকা এবং মালদ্বীপ এর উদাহরণ তুলে ধরেছেন তিনি। কয়েক বছর আগের সমুদ্র বন্দর বানাবার জন্য শ্রীলঙ্কা চীনের কাছ থেকে ঋণ নিয়েছিল। এর পরিবর্তে ওই বন্ধর 99 বছর ব্যবহার করার জন্য চীনকে অনুমতি দেয় এই দেশটি। শুধু এখানেই নয় তাদের শর্ত ছিল বন্দরে 70% চীনের আয়ত্তে থাকবে। মালদ্বীপকেও ঠিক একইভাবে ফাঁসিয়েছে চীন। এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিনিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রতিবেশী দেশের সাথে বন্ধুত্বের হাত বাড়াচ্ছে চীন। তাতে সেই দেশ রাজিও হয়ে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে চীনের ফাঁদে পা দিচ্ছে বিভিন্ন দেশ গুলি। সেই সুযোগে ঐ সমস্ত দেশ গুলির উপর চীন নিজের প্রভাব বিস্তার করে যাচ্ছে। ডানফোর্ড এর অভিযোগ, প্রতিবেশী দেশগুলোর সেনাবাহিনীর উপর ইতিমধ্যেই প্রভাব বিস্তার করে দিয়েছে চীন। দক্ষিণ সাগরে যে ভাবে চীন দাপট বানানোর চেষ্টা করছে তাতে ওই দিকের দেশগুলোর চিন্তার বিষয়।

2013 থেকে শুরু করে 2018 মধ্যে দক্ষিণ চীন সাগর এবং এবং ওই দিকের বিমান বাহিনী এবং নৌ বাহিনীর সংখ্যা 12 গুণ বাড়িয়ে দিয়েছে বেইজিং। শুধু এটাই নয় ঐ সমস্ত অঞ্চলে আত্মরক্ষামূলক এবং আক্রমণাত্মক অস্ত্রশস্ত্র দিন দিন বাড়াচ্ছে তারা। চীনের এই নীতি আমেরিকার জন্য কতটা খারাপ প্রভাব পড়তে পারে তার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ডানফোর্ড।

Related Articles

Back to top button