আবারও বড় ধাক্কা খেলো চীন! এবার চীন ছেড়ে ভারতে যাওয়া সংস্থাগুলিকে আর্থিক সহায়তা দেবে জাপান…

চীন এবং জাপানের মধ্যে যে দ্বন্দ্ব লেগে রয়েছে সেটি নতুন কিছু নয়, দ্বিতীয় বিশ্ব যুদ্ধে পরাজিত হওয়ার পর থেকে চীনা ভূমিতে অগ্রাসন চালিয়েছিল জাপ বাহীনি। অন্যদিকে নানজিং গণহত্যার কথা আজো ভুলেনি চীনারা কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি অনেকটা পাল্টেছে।আর এখন আগ্রাসনে নীতি ছেড়ে দায়িত্বশীল রাষ্ট্র হিসাবে ধীরে ধীরে আত্মপ্রকাশ করছে জাপান কিন্তু ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে সম্প্রসারণবাদী নীতি নিয়েছে চীন এক্ষেত্রে। যার ফলে এখন জাপানসহ অধিকাংশ প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছে চীনের বেজিং।

 

তবে এবার এই কমিউনিস্ট দেশটিকে শিক্ষা দিতে অর্থনীতির ময়দানে মোর্চা খুলতে চাইছে টোকিও, সম্প্রতি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের তবে যে খবর বেরিয়েছে সেখানে জানতে পারে যে প্রায় 24 বিলিয়ন ইয়েন যা মার্কিন ডলারের যদি ধরা হয় তাহলে তা দাঁড়াবে প্রায় 221 মিলিয়ন মার্কিন ডলার একটি তহবিল গঠন করেছে এক্ষেত্রে জাপান‌। বলে রাখি এক্ষেত্রে এই যে তহবিল গঠন করা হয়েছে সেটি চীন থেকে যে সমস্ত জাপানি বাণিজ্যিক সংস্থা তাদের কারখানা ভারতে স্থানান্তরিত করতে চলেছে তাদের এই তহবিল থেকে বিশেষ ছাড় বা সাবসিডি সুবিধা প্রদান করবে টোকিও।

তবে যেমনটা আমরা জানি গত এপ্রিল মাসে গোটা বিশ্বজুড়ে করোনা আবহের মধ্যে চীন থেকে ফের জাপানে কারখানায় স্থানান্তরিত করলে সেই সংস্থা গুলিকে ছাড় দেওয়ার জন্য 2 বিলিয়ন মার্কিন ডলারের তহবিল ঘোষণা করেছিল এক্ষেত্রে জাপানের শিনজো আবে প্রশাসন। তবে এক্ষেত্রে শুধু ভারতেই নয় চীন থেকে যদি বাংলাদেশ ও কারখানা সরিয়ে নিয়ে আসা হয় তাহলে জাপানি সংস্থাগুলি এক্ষেত্রে বিশেষ ছাড়ের সুবিধা পাবে। আর গত জুলাই মাসে জাপানের অর্থমন্ত্রী জানিয়েছিলেন বিখ্যাত ফেসমাস্ক নির্মাতা Iris Ohyama ও Sharp Corp সহ প্রায় 57 টি কোম্পানি এক্ষেত্রে প্রায় 536 মিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড় পাবে।

তাছাড়া ভিয়েতনাম, মায়ানমার, থাইল্যান্ড এবং অন্যান্য দক্ষিণ এশীয় দেশ গুলিতে কারখানা সরিয়ে নেওয়ার আরো কুড়িটি বাণিজ্যিক সংস্থাকে বিশেষ ছাড় দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদের মত চীন তার অগ্ৰাসন নীতির কারণে আজ গোটা বিশ্বে একঘরে হয়ে পড়েছে,তাছাড়া দক্ষিণ চীন সাগরের দখল নিয়েও ভিয়েতনাম, জাপান, ফিলিপিন্স, দক্ষিণ কোরিয়া সহ একাধিক দেশের সঙ্গে ইতিমধ্যে বিবাদে জড়িয়ে চীন। ভারতের সীমান্ত দখল নিয়ে বারবার অগ্রাসন নীতি চালিয়ে যাচ্ছে লাল ফৌজ তাই এবার এই কমিউনিস্ট দেশটিকে শিক্ষা দিতে অর্থনৈতিক ময়দানে নামতে শুরু করেছে বিশ্বের একাধিক দেশ যাদের মধ্যে উঠে এসেছে তাইওয়ান, জাপান, ভারত, আমেরিকা সহ অন্যান্য দেশের নাম তাই এক্ষেত্রে বলা যেতে পারে সব মিলিয়ে এমন পদক্ষেপ গ্ৰহনে রীতিমতো বড়সড় ধাক্কা খেয়েছে বেজিং।