চীন, পাকিস্তানের মুখে ঝামা ঘষে ফাইনাল হয়ে গেল রাফেল ডেলিভারির দিন !

শেষে সমস্ত অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে এবার ভারতীয় বায়ুসেনা পেতে চলেছে রাফায়েল বিমান। এই রাফায়েল বিমান খুব সহজে শত্রুপক্ষকে দমন করে ধ্বংস করতে সক্ষম। আর এই শক্তিশালী বিমান পেতে চলেছে ভারতীয় বায়ুসেনা। আগামী বছর অর্থাৎ 2019 সালের সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে এ বিমান ভারতের হাতে আসবে বলে এমনটাই খবর সূত্রে জানা গেছে। 2016 সালের ছত্রিশটি রাফায়েল বিমান কেনার জন্য চুক্তিবদ্ধ করেছিল ভারত ফ্রান্সের সাথে। শুধুমাত্র উন্নত অস্ত্রশস্ত্রের অভাবে বায়ুসেনার কাজে কিছু ঘাটতি পড়ছিল। সেই জন্য ভারত সরকার ফ্রান্সের সাথে চুক্তি করে। এই রাফায়েল বিমান কেনার জন্য প্রথমে 25,000 কোটি টাকা দেবে ফ্রান্সকে ভারত। মোট 59,000 কোটি টাকা খরচ করে 36 টি বিমান নেওয়ার কথা হয় ফ্রান্সের সাথে ভারতের। সরকারি তরফ থেকে জানানো হয়েছে এর জন্য প্রথম পক্ষে ফ্রান্সকে 25,000 কোটি টাকা দেবে এ রকমই চুক্তি হয়েছিল। এইজন্য ফ্রান্সের সাথে সমস্ত রকম কথা হয়েছিল ফলে 15% থেকে 29% সঞ্চয় করতে পেরেছে
বায়ুসেনা। সরকারের তরফ থেকে আরও জানানো হয়েছে যে,যদি দ্বিতীয় শর্ত সঠিকভাবে কাজে লেগে যায় তাহলে এই সঞ্চয়ের পরিমাণ 29 শতকরা থেকে বাড়িয়ে 40 শতকরা করে দেওয়া সম্ভব হবে।

বায়ুসেনার অধিকারীরা জানিয়েছেন এরকম উন্নত অস্ত্রশস্ত্র ব্যবহার করতে পারছেন তারা। যদি 2008 সালে কংগ্রেসের বদলে বিজেপি সরকার থাকতো তাহলে এই চুক্তি আরো বেশি সফল হতো বলে তারা জানিয়েছেন। এই চুক্তির সাফল্য তা দেখে উচ্চ বায়ুসেনা অধিকারীরা জানিয়েছেন আমাদের হাতে এই সময় যে সমস্ত যুদ্ধ বিমানগুলি রয়েছে সেগুলো অত্যন্ত পুরনো হয়ে গেছে এবং তাদের কার্যক্ষমতা অনেকটাই হাস পেয়েছে তাই এই চুক্তি যদি সঠিক সময়মতো না করা হতো তাহলে আমাদের অস্ত্রশস্ত্র হাতে আসতে আরো দেরি হতো।যার ফলে আমাদের শক্তি অনেকটাই হ্রাস পেয়ে যেত। এই চুক্তি করার জন্য বায়ুসেনার তরফ থেকে মোদি সরকার কে অসংখ্য ধন্যবাদ জানানো হয়েছে। বায়ু সেনা দপ্তর থেকে আরও জানানো হয়েছে আমাদের যুদ্ধের জন্য কমপক্ষে 42 টি শক্তিশালী বিমান প্রয়োজন হয়।

কিন্তু এখন এই মুহূর্তে আমাদের হাতে রয়েছে মাত্র 31 টি এবং সেগুলি অত্যন্ত পুরনো হওয়ায় খুব একটা ভালো কাজে আসে না। তাই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঠিক সময়ে এই চুক্তি করে আমাদের অত্যন্ত উপকার করেছেন। আমরা অত্যন্ত খুশি এগুলি খুব তাড়াতাড়ি আমাদের হাতে আসতে চলেছে । এর জন্য কেন্দ্রীয় সরকার সমস্ত রকম ব্যবস্থা করেছেন যাতে সেগুলো আমাদের কাছে খুব তাড়াতাড়ি এসে পৌঁছায়।

আর সেই সাথে বায়ুসেনা অধিকারীকরা কংগ্রেসকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েনি। তারা বলেন যে মোদি সরকার দেশে সুবিধার্থে এত ভাল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কিন্তু কংগ্রেস রাহুল গান্ধী নিজেদের ভোটের জন্য সেই ব্যাপার গুলি নিয়ে রাজনীতি করছে এবং সাধারণ মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে। এটা কোন রকম ভাবে কোন রাজনৈতিক দলের কাজ নয়। আপনাদের জানিয়ে রাখা ভালো যে, চীন ও পাকিস্তান কংগ্রেসের সাথে মিলে ভারতে রাফায়েলের চুক্তিকে আটকাবার চেষ্টাও করেছিল। কিন্তু এখন প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী কংগ্রেসের পুরো প্লান ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেছে।