ইচ্ছাকৃতভাবে করলে চীনকে বরদাস্ত নয়, চীনকে আবারও কড়া হুঁশিয়ারি মার্কিন প্রেসিডেন্টের

করোনা ভাইরাস নিয়ে এর আগে বহুবার চীনকে আক্রমন করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এমনকি ডোনাল্ড ট্রাম্প শি জিনপিংক সরাসরি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, চিন ইচ্ছাকৃত ভাবে করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে এই প্রমাণ পেলেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে, চীনের ওই ভুলের জন্য গোটা পৃথিবীকে ভুগতে হচ্ছে। চীন পারলে করোনা ভাইরাস সংক্রমণকে আটকাতে পারতো কিন্তু চীন তা করেনি।

এর আগেও করোনা ভাইরাস নিয়ে চীন এবং আমেরিকার দন্ত হয়েছে। আমেরিকা দাবি করেছে করোনা ভাইরাস নিয়ে চিন তথ্য গোপন করেছে।এ নিয়ে আমেরিকা আন্তর্জাতিক মহলে অভিযোগও জানিয়েছেন। আবার ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি ইচ্ছাকৃত ভাবে হোক বা অনিচ্ছাকৃত চীনের এই ভুলের জন্য আজকে গোটা পৃথিবীকে ভুগতে হচ্ছে। তিনি আরো জানিয়েছেন যে, “অনেক রকমের ঘটনা ঘটেছে সব কিছুর তদন্ত চলছে। আমরা আসল সত্যটা বের করেই আনবো।

আমি একটাই কথা বলতে চাই, চীন থেকে এই ভাইরাস যেমন করেই ছড়াক না কেন এর জন্য 184 টা দেশ ভূগছে।” ডোনাল্ড ট্রাম্প কমিউনিস্ট দেশটিকেও আক্রমন করতে ছাড়েননি।যদি ওরা জেনে বুঝে এটা করে থাকে তাহলে ওদের শাস্তি পেতেই হবে। এরপর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, আমরা অনেক দিন ধরেই চীনে ঢোকার চেষ্টা করছি। কিন্তু ওরা আমাদের অনুমতি দেয়নি। আমরা এবার নিজেদের মত করে তদন্ত করছি।

যারা ইচ্ছা করে এই ভাইরাসটিকে ছড়িয়েছে তাদের শাস্তি পেতেই হবে। এর পাশাপাশি ইউহানের একটি গবেষনাগারকে যে 30 লক্ষ 70 হাজার ডলার আর্থিক অনুদান দিত তা তাড়াতাড়ি বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এই ভাইরাসটি কোথা থেকে কারা নিয়ে গিয়েছিল সমস্ত কিছুর তদন্ত করছে আমেরিকা। এই মূহুর্তে অনেক তথ্য জোগাড় করেছে মার্কিন গোয়েন্দারা। এছাড়াও আমেরিকা জানার চেষ্টা করছে এই ভাইরাসটি ছড়ানোর পিছনে চীনের প্রকৃত উদ্দেশ্য কি।

Related Articles

Close