জনস্বার্থবিরোধী এই বিদ্যুৎ সংশোধনী বিল,প্রতিবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি মুখ্যমন্ত্রী মমতার

বিদ্যুৎ সংশোধনী বিলের বিরোধিতা করে ফের নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিলেন মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার বক্তব্য বিদ্যুৎ সংশোধনী বিল জনস্বার্থবিরোধী। কোনরকম আলোচনা ছাড়াই মোদী সরকার সংসদে এই বিল পাস করেছে বলে জানা গেছে। শনিবার কেন্দ্রের একতরফা সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। মুখ্যমন্ত্রী ইউ জানান এই আইন কার্যকর করা হলে রাজ্যের অধিকার খর্ব করা হবে। তাই এই সংশোধনী বিল কে যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো পরিপন্থী বলে মনে করছেন তিনি।

মোদি সরকার চলতি অধিবেশনে একতরফাভাবে বিদ্যুৎ বন্টন সংশোধনী বিল পেশ করেছেন। এই বিল বিল পাস করার পর থেকেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর দাবি ২০২০ সালে এই বিল পাস করার চেষ্টা করেছিল মোদী সরকার। সেই সময় অবশ্য সর্বদল নিয়ে একটি আলোচনা চেয়েছিল রাজ্যগুলি কিন্তু সেই কথা না শুনে একতরফাভাবে বিল পেশ করল কেন্দ্র। মুখ্যমন্ত্রী মনে করেন এই বিল আইন আকারে পরিণত হলে রাজ্যের বিদ্যুৎ সংস্থা গুলি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়বে।

প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন সংবিধান অনুযায়ী রাজ্য ও কেন্দ্রীয় তালিকায় থাকা প্রয়োজন অথচ রাজ্যের সাথে কোন রকম আলোচনা না করে একতরফাভাবে জনবিরোধী পাস করা হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী আরো বলেন ‘বিদ্যুৎ বিল পাস হলে বিদ্যুৎ বন্টন ব্যবস্থা রাজ্যের নিয়ন্ত্রণ চলে যাবে। যার জেরে সমস্যায় পড়বেন রাজ্যের গরীব মানুষেরা’। মূলত দেশের বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে প্রতিযোগিতা বৃদ্ধির জন্য চলতি অধিবেশনে বিদ্যুৎ সংশোধনী বিল আনতে চলেছে মোদি সরকার। এই বিল পাস হলে দেশের যে কোন এলাকায় যে কোন বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থা বিদ্যুৎ বন্টন করতে পারবে।

এক রকম ভাবে বলতে গেলে বন্ধ হয়ে যাবে বিদ্যুৎ বন্টনে লাইসেন্স প্রথা। ফলে একই এলাকায় একাধিক বিদ্যুৎ বন্টন সংস্থা এবার থেকে বিদ্যুৎ বন্টন করতে পারবে ঠিক যেমন এখন টেলিফোন বা ইন্টারনেট পরিষেবা রয়েছে। কেন্দ্র দাবি করেছে বিদ্যুৎ বন্টন এর এই প্রথা চালু করা গেলে প্রতিযোগিতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বিদ্যুতের দামও অনেকটাই কমে যাবে যার ফলে আখেরে লাভ হবে সাধারণ মানুষের। কিন্তু এই ব্যাখ্যা মানতে নারাজ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, তাঁর মতে এই বিল জনবিরোধী। এই বিল পাস হলে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীনের মুখে পড়বে সমগ্র রাজ্য।