চল্লিশ বারের ও বেশি ব্যার্থ হয়েছিল আমেরিকা আর রাশিয়া! তারপর ছুঁয়েছিল চাঁদের মাটি…

পাঁচ মাস আগে অর্থাৎ এপ্রিল মাসে ইজরায়েলের মহাকাশযান চাঁদে অবতরণ করার সময় ওই মহাকাশ যানটি বিকল হয়ে পড়ে এবং সমস্ত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। চাঁদে অবতরণ করার একদম শেষ মুহূর্তে পৃথিবীর সাথে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এবং সেই যানটি দুর্ঘটনাগ্রস্ত হয়।এরপর ইজরায়েলের এই বিষয়টিকে অসফল বলে ঘোষণা করতে বাধ্য হয়।2019 সালের 22 শে ফেব্রুয়ারি ইসরায়েল মহাকাশ যানটিকে থেকে চাঁদে পাঠিয়েছিল।

গণনার রিপোর্ট বলছে এখনও পর্যন্ত চাঁদে মোট 109 টি অভিযান করা হয়েছিল যার মধ্যে 81 টি অভিযান সফল হয়েছে । এবারে মিশনের সংখ্যা 110 টি তার মধ্যে অসফলতার সংখ্যা 42 টি। পরিসংখ্যান বলছে এখনও পর্যন্ত চাঁদের মাটিতে সফল ল্যান্ডিং করার চেষ্টা করা হয়েছে 38 বার। যার মধ্যে সব মিলিয়ে 52% চেষ্টা সফল হয়েছে। আপনারা হয়তো অনেকেই জানেন না যে, ভারতের আগে মাত্র 6 টি দেশের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা চাঁদের উদ্দেশ্যে মহাকাশযান পাঠিয়েছিল।

আর এই 6 টি দেশের মধ্যে মাত্র তিনটি দেশ সফলতা লাভ করে। তিনটি দেশ হলো চীন,আমেরিকা এবং রাশিয়া। চাঁদে মহাকাশযান পাঠানোর প্ল্যানিং প্রথম 17 ই আগস্ট 1958 সালে আমেরিকা করেছিল। কিন্তু তাদের এই মহাকাশযান পায়োনিয়ার-0 অসফলতা লাভ করে। 6 বার চেষ্টা করার পর আমেরিকার হাতে আসে সফলতা। এরপর আমেরিকা 20 জুলাই 1969 সালে অ্যাপেলো- 11 মিশনের মাধ্যমে চাঁদে প্রথমবার অবতরণ করে।

আমেরিকার মহাকাশ যাত্রীর নীল আর্মস্ট্রং এবং বাজ আলড্রিন চাঁদে পা রাখা প্রথম এবং দ্বিতীয় মহাকাশ যাত্রী। 17 আগস্ট 1958 সাল থেকে 18 ডিসেম্বর 1970 সাল পর্যন্ত আমেরিকা মোট 31 বার চন্দ্র অভিযান করেন। এরমধ্যে 14 টি অভিযান অসফল হয়। অর্থাৎ আমেরিকা 45.17 শতাংশ সফল হয়েছিল। রাশিয়া এমন একটি দেশ যে দেশ প্রথমবারেই চন্দ্র অভিযান সফল হয়েছিল। 1959 সালে রাশিয়া প্রথমবার চাঁদে অভিযান করে। 1958 সাল থেকে 1976 সাল পর্যন্ত রাশিয়া মোট 33 বার অভিযান করে এবং তার মধ্যে 26 টি অভিযান অসফল হয়।

অর্থাৎ আমেরিকা ও রাশিয়া মিলে মোট 64 বার অভিযান করে যার মধ্যে 43 বার অসফল হয় আর 2018 সালের ডিসেম্বর মাসের চীন চাঁদের উদ্দেশ্যে তাদের প্রথমবার মহাকাশযান পাঠায় । আর সেটি 2019 সালের জানুয়ারি মাসের 3 তারিখে চাঁদে ল্যান্ড করে।