আগামী 48 ঘণ্টার মধ্যে জোড়া ঘূর্ণবাতে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলাতে…

গত বুধবার দিন বিকেল বেলায় প্রচন্ড গরমের পর বিক্ষিপ্ত ঝড় বৃষ্টির কারণে খানিকটা হলেও স্বস্তির আবহাওয়া কলকাতা সহ আশেপাশের আরো কিছু অঞ্চলে। গত কয়েকদিন ধরে ক্রমশ বেড়েই চলছিল আবহাওয়া যার ফলে গত বুধবার দিন পারদ অনেকটাই চলে গিয়েছিল দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গাতে। আর ঠিক এই একই অবস্থা আজ বৃহস্পতিবার দিনও।তবে গত কয়েক দিন ধরে যে রকম গরম আবহাওয়া ছিল তার তুলনায় এই গরমে চরিত্রটা কিছুটা অন্যরকম,কারণ এই কয়েকদিন সকাল থেকে রোদের পাশাপাশি ছড়িয়েছে ঘুরছিল আদ্রতাও।

ফলে এরকম পরিস্থিতিতে অনেকটা অস্বস্তি তৈরি হয়েছিল।তবে এবার আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে আগামী 48 ঘণ্টার মধ্যে গাঙ্গের পশ্চিমবঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস পাওয়া গিয়েছে। যার ফলে তিনটি উপকূল জেলা সহ আরও সাতটি জেলাতে আগামী 48 ঘন্টা ঝড় বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। উপকূলে তিনটি জেলা এবং দুই 24 পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, হাওড়া, কলকাতা, ঝাড়গ্রাম এবং পশ্চিম মেদিনীপুর এই জেলাগুলিতে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে আগামী 48 ঘণ্টার মধ্যে।

বঙ্গোপসাগরের বিপরীত ঘূর্ণবাতের ফলে প্রচুর পরিমাণে জলীয়বাষ্প ঢুকেছে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে এলাকাগুলিতে।যার ফলে বাংলাদেশ অসংলগ্ন এলাকা এবং গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের উপর দুটি ঘূর্ণবাত তৈরি হয়েছে। এর প্রভাবে ঝড় বৃষ্টির সম্ভাবনা দেখা মিলেছে পশ্চিমবঙ্গেও।তাছাড়া গত 24 ঘন্টায় কলকাতায় সামান্য বৃষ্টিপাত হয়েছে আজ বৃহস্পতিবার দিন কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল 24.5 ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড যা প্রায় স্বাভাবিক। আর এক্ষেত্রে বাতাসে আপেক্ষিক আদ্রতার পরিমাণ ছিল 34 থেকে 94 শতকরা।

যার ফলে আজ বৃহস্পতিবার দিন বিকেল দিকে ঝড় বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছিল পূর্ব মেদনীপুর, ঝাড়খন্ড, হাওড়া, কলকাতা এবং দুই 24 পরগনাতে। এইদিন বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে এমনটাই বলা হচ্ছিল।তবে শুক্রবার দিন এই সাতটি জেলায় বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে শনিবার দিন শুধু উপকূল জেলাগুলিতে ঝড়- বৃষ্টির সম্ভাবনা জানানো হয়েছে আবহাওয়া দপ্তর তরফ থেকে। তবে যে পরিমাণে এখন জলীয়বাষ্প গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে ঢুকতে তার জেরে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি হয়ে গেলে রবি ও সোমবার ঝড় বৃষ্টি হতে পারে বিক্ষিপ্তভাবে বিভিন্ন জায়গাতে এমনটাও জানানো হয়েছে আবহাওয়া দপ্তর তরফ থেকে।