ভারতের বাজারে Tik-Tok সহ 59 টি অ্যাপ বন্ধ হয়ে যেতে পারে চিরজীবনের জন্য, যদি না মেলে কেন্দ্রের চেয়ে পাঠানো প্রশ্নের উত্তর…

গালওয়ান উপত্যকায় চীন এবং ভারতের সংঘাতের পর থেকে সারা দেশ জুড়ে চীনা পণ্য বয়কট করার উদ্যোগ নেয় ভারতবাসী। এরপর কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে টিকটক সহ আরোও 59 টি চীনা অ্যাপ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর প্রধান কারণ হল এই সমস্ত চীনা অ্যাপগুলি ব্যবহার কারীদের তথ্য পাচার করতো বলে অভিযোগ উঠে এসেছে গোয়েন্দা মহল থেকে। শুধু তথ্য পাচার নয় এই অ্যাপগুলি ভারতবাসী ব্যবহার করার ফলে ভারতের কাছ থেকে অনেক মোটা অংকের টাকা যেত চীনের কাছে ফলে চীন অর্থনৈতিক ভাবে দিনের-পর-দিন শক্তিশালী হয়ে উঠছিল।

আর সরকারের তরফ থেকে যখন এই চীনা অ্যাপ্লিকেশন গুলি ব্যান করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় তারপরই এই চীনা অ্যাপগুলির মধ্যে অতি জনপ্রিয় অ্যাপ Tik-Tok নিয়ে একাধিক প্রশ্ন-উঠতে শুরু করে। তারপর জানানো হয় ভারত সরকারের তরফ থেকে যে এগুলিকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে সেগুলি কে নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয় সহ একাধিক বিষয় সুনিশ্চিত করতে হবে। আর এবার সেই প্রশ্ন- উত্তরই চেয়ে পাঠালো কেন্দ্র সরকার। আর কেন্দ্রের তরফ থেকে যে সব প্রশ্নের উত্তর জানতে চেয়ে পাঠানো হয়েছে সেগুলি যদি না দিতে পারে এই অ্যাপ সংস্থাগুলি তাহলে ভারতের বাজারে তাদের চিরজীবনের জন্য ব্যান হয়ে যাবে সেই অ্যাপ।

এখন প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারে যাচ্ছে টিকটক, হ্যালো সহ মোট 59 টি অ্যাপকে কেন্দ্রের তরফ থেকে 79 টি প্রশ্নের উত্তর চেয়ে পাঠানো হয়েছে আর এটি কে চেয়ে পাঠিয়েছে ইলেকট্রনিক অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি (MEITY)।আর ওই অ্যাপ সংস্থাগুলিকে আগামী 22 জুলাই এর মধ্যে এইসব প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে, নাহলে ভারতের বাজারে বন্ধ হয়ে যাবে এই সব অ্যাপ চীরজীবনের জন্য। তবে কেন্দ্রের তরফ থেকে এই লম্বা প্রশ্নমালার মধ্যে যেসব বিষয় গুলি অ্যাপ সংস্থার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে সেগুলি হল নিম্নরূপ,

যেখানে জানতে চাওয়া হয়েছে অ্যাপ কোম্পানিগুলি কোন দেশের? তাদের টাকার উৎস কী? কীভাবে তারা সাধারণ মানুষের তথ্য ব্যবহার করে? ডাটা সার্ভার কথায় বসানো রয়েছে অ্যাপগুলির? তাছাড়া অ্যাপগুলি অবৈধভাবে গ্রাহকদের কোনো তথ্য সংগ্রহ করছে কীনা সে সম্পর্কেও জানতে চাওয়া হয়েছে। আর এই গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে।এক্ষেত্রে অ্যাপগুলি কাছ থেকে যদি কোন উত্তর আসে তাহলে সেই কমিটি সেগুলি পর্যবেক্ষণ করবে এবং বিষয়টি খতিয়ে দেখবে।অন্যদিকে ভারতের মতো এরকম এক বড় বাজার হারাতে চাইছে না টিক টক যার জন্য এর আগেই টিক টক এর তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে গ্রাহকদের তথ্য নিরাপত্তা তাদের কাছে প্রধান গুরুত্বের বিষয়। তবে এখন দেখার বিষয় হচ্ছে কেন্দ্রের তরফ থেকে এরকম এক প্রশ্ন চেয়ে পাঠাবার পর কী উত্তর মেলে এই অ্যাপ সংস্থাগুলির তরফ থেকে।