নিজের বক্তব্যের সাফাই দিতে গিয়ে এবার এক আজব ব্যাখ্যা দিলেন কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতা তথা বাবুল সুপ্রিয়

সতীদাহ প্রথা রদ করেছিলেন ইশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর এমনই মন্তব্যকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় এর ইতিহাস জ্ঞানকে নিয়ে চলছে অনেক তামাশা। টলিউডের কলাকুশলীদের নিয়ে ‘খেলা হওয়া’ সংগঠনের আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে দাবি করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। এবার নিজের বক্তব্যকে সাফাই দিতে গিয়ে আজব ধরনের বাখ্যা দিলেন তিনি। ‘খোলা হাওয়ার’ আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে বাবুল সুপ্রিয় বলেন, ” সতীদাহ প্রথার বিলোপ এবং বিধবা বিবাহ চালু করেছিলেন বিদ্যাসাগর।

তার জন্মদিনে একটা সংগঠন শুরু হচ্ছে এটাই অনেক বড় ব্যাপার।” বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে এই বিষয়টি নিয়ে হৈচৈ শুরু হয়ে যায়। এরপর বাবুল সুপ্রিয় তার এই বিবৃতিতে টুইট করে বলেন, হা হা। সত্যিই একটা ভুল করেছি। বিদ্যাসাগর নিয়ে কিছু বলবার সময় বিধবা বিবাহ বলতে গিয়ে তার সঙ্গে সতীদাহ প্রথার অবলুপ্তি ও যোগ করে দিই। এটাকে বলে ‘স্লিপ অফ টাং’ । এবার এটা নিয়ে অনেকেই লিখেছেন মস্ত বড় ভুল করোও অনমনীয় হতে নারাজ কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়।

অনেকে আরও কিছু লিখেছেন বিশেষ করে বামেরা।
এরপরে হাসির ছলে রাজা রামমোহন রায় কে টেনে এনে বাউল সুপ্রিয় বলেন, ” যদিও আমাকে রাজা রামমোহন রায় ক্ষমা করে দিয়ে হাসিমুখে এসএমএস পাঠিয়েছেন। এমনকি আশীর্বাদও করেছেন।আপনারাও করে ফেলুন বলতে ইচ্ছা করছে নিশ্চয়ই কিন্তু পারবেন কী সেটা করতে?” কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় এখানেই থামেননি তিনি আরো বলেন, ” তবে আর যাই করি কিন্তু মানুষের ক্ষতি করি না। বৃষ্টির দিনে চা-তেলেভাজা খেতে খেতে একটি আলোচনা করার বিষয় তো পেলেন।”

ইতিমধ্যে যাদবপুরের বাবুল সুপ্রিয় কে ঘিরে বিক্ষোভ দেখায় ছাত্রছাত্রীরা। এখানে ছাত্রছাত্রীদের কাছে বাবুল সুপ্রিয় এনআরসির পুরো কথার অর্থ জানতে চাই। বিজেপি নেতা তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় বলেন যাদবপুরে এনআরসি কথার অর্থ জিজ্ঞেস করার সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। এর আগে এমনই চাঞ্চল্যকর বক্তব্য পড়েন দিলীপ ঘোষ। তিনি সহজপাঠ বিদ্যাসাগর এর রচয়িতা বলে মন্তব্য করেন। ফলে সোশ্যাল মিডিয়ায় তামাশার পাত্র হয়েছিলেন দীলিপ ঘোষ। অবশ্য পরে তিনি এটার জন্য দুঃখ প্রকাশ বা ভুল স্বীকার করেননি। কিন্তু বাবুল সুপ্রিয় অবশ্য এ নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছেন যে তিনি ভুল করে ওটা বলে ফেলেছেন।

Related Articles

Back to top button