বিধানসভা নির্বাচনের আগে আবারও বড়সড় চাপে বিজেপি, উদ্বেগ বাড়াচ্ছে মুকুল দিলীপদের

একদিকে যেমন বিধানসভা নির্বাচনের আগে শাসকদলের ঘর ভাঙাচ্ছে বিজেপি, তেমনি অন্যদিকে জেলার বিভিন্ন জায়গায় বিজেপির গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে আসছে৷  বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নতুন  বনাম পুরাতনের লড়াই। বিধানসভা ভোটের আগে এই গোষ্ঠী কোন্দলই উদ্বেগ বাড়াচ্ছে বিজেপির। আর তাই ভোটের আগে কার্যত ‘কর্মী-নিয়োগ’ বন্ধ করার কথা  ঘোষণা করলেন কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।

আজ ফের নদিয়াতে বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে। দলের সাংগঠনিক জেলা সভাপতির বিরুদ্ধে ক্ষোভপ্রকাশ দলীয় নেতৃত্বের একাংশের। কর্মীদের একাংশের অভিযোগ, সভাপতি সবাইকে নিয়ে চলতে পারেন না।  বারবার শীর্ষ নেতৃত্বকে জানিয়েও লাভ হয়নি। যদিও দলের মধ্যে সমস্যা হলে তা প্রকাশ্যে আনা উচিত নয় বলে জানিয়েছেন বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার।  একই সঙ্গে সবার বক্তব্য শোনার কথা জানিয়ছেন তিনি। তবে দলবিরোধী আচরণ কখনই মানা হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার।

গোষ্ঠী কোন্দলই উদ্বেগ বাড়াচ্ছে মুকুল দিলীপদের। নতুন আর পুরোনোদের ঘিরে তৈরি হচ্ছে একাধিক গোষ্ঠী।  অনেকেই নব্যদের ‘নব্য-তৃণমুলি’ বলেও কটাক্ষ করছেন! ভোটের আগে পুরানো কর্মীদের বসে যাওয়ায় সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বিজেপির পুরানো কর্মীরা। গত কয়েকমাসে একাধিক তৃণমূল নেতা, বিধায়ক বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। তাঁদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন বহু অনুগামীও। অনেক ক্ষেত্রে খুনের অভিযোগও রয়েছে এমন মানুষও যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে। এসব নিয়েই বিতর্ক বাড়ছে বলে মনে করছেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের একাংশ৷

বিধানসভা অধিবেশন শেষ দিন 72 হাজার কোটি টাকার নতুন প্রকল্পের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী মমতার, থাকছে

গত কয়েকদিন আগে দলবদল করে  তৃণমূল থেকে বিজেপিতে গিয়েছেন শান্তিপুরের বিধায়ক অভিজিত সরকার।  কংগ্রেস তৃণমূল হয়ে সম্প্রতি বিজেপিতে যোগ তাঁর। একমাস আগে বিজেপিতে যোগ দিলেও  স্থানীয় কোনও বিজেপি কর্মী এখনও পর্যন্ত তাঁর সঙ্গে দেখা করতে আসেনি। শান্তিপুরে স্পষ্ট বিজেপির গোষ্ঠী কোন্দল।এর প্রভাব ভোটবাক্সে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা বিজেপি নেতৃত্বের।

গোষ্ঠী কোন্দল ভোটের আগে শাসকদলকে বাড়তি সুবিধা করে দেবে। তাই আপাতত ভোটের আগে বিজেপির দরজা বন্ধ করা হল। এক তৃণমূল নেতার কথায়, রাজ্যজুড়ে নব্য বনাম আদি লড়াইয়ে ভুগছে বিজেপি। দল ভাঙানো খেলা করতে গিয়ে নিজেদেরই সমস্যা বড়েছে। ফলে বিজেপির অবস্থা যত খারাপ হবে তাতে তৃণমূলেরই লাভ হবে .