মধ্যরাতে কেন্দ্র সরকারের বড় ঘোষণা!শনিবার থেকে পুর এলাকাজুড়ে খোলা হবে দোকানপাট..

দেশে করোনা সংক্রমণ রোধে জারি রয়েছে আগামী 3 মে পর্যন্ত লকডাউন তবে লকডাউনের একমাস সম্পন্ন হওয়ার পর কেন্দ্রের নতুন ঘোষনাতে সামান্য হলেও আশার আলো দেখতে পেয়েছে দেশের মানুষ।কারণ গতকাল শুক্রবার দিন মাঝরাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির তরফ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে, শনিবার থেকে অত্যাবশ্যকীয় পণ্য নয় এমন দ্রব্য বিক্রি করার জন্য ও দোকান খোলা যাবে। একদিকে দেশ জুড়ে বাড়ছে সংক্রমণ, তার পাশাপাশি গত শুক্রবার দিন একদিনের সংক্রমনের খবর পাওয়া গেছে 1752 টি নতুন করে।

যার ফলে ভারতে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা এক ঢাক্বায় বেড়ে দাঁড়িয়েছে 23 হাজার 452 জনে। এর পাশাপাশি এই ভাইরাসের দরুন মৃতের সংখ্যা পার হয়ে গিয়েছে 700 জন। এই মুহূর্তে ভারতের বর্তমান পরিস্থিতি কেমন তা ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলা হয়েছে, রমজান মাস শুরু হওয়ার আগে এই পরিসংখ্যান যথেষ্ট ভয় পাইয়ে দেওয়ার মতো, তবে এ বিষয়ে আনন্দের খবর হল সংক্রমিত ব্যক্তিদের মধ্যে থেকে ভারতে সুস্থ হওয়া মানুষের সংখ্যা শতকরা বিচারে 20 পার করেছে। আর এক্ষেত্রে মৃত্যুর হার মাত্র 3 শতকরা যা বিশ্বজনীন সাতের থেকে অনেকটাই কম রয়েছে।তবে এবার কেন্দ্রীয় সরকারের এই নতুন ঘোষণার দরুন দেশের মানুষ অনেকটাই আশার আলো দেখতে পেয়েছে কারণ এই দিন কেন্দ্রীয় সরকার ঘোষণা করেছেন শনিবার থেকে দোকানপাট খোলার পাশাপাশি আগামী তিন তারিখ পর্যন্ত পরিস্থিতি অনেকটাই ঠিক করে ফেলতে পারে বলে আশা প্রকাশ করেছে। তবে এক্ষেত্রে অত্যাবশ্যকীয় নয় এমন পণ্যের দোকান খোলা থাকলেও এখনও পর্যন্ত বড় বড় শপিং কমপ্লেক্স ও মল গুলি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তই বর্তমান রয়েছে।সরকারের তরফ থেকে জারি করা এই নতুন নির্দেশিকাতে জানানো হয়েছে ছোট ব্যবসায়ীরা, স্থানীয় দোকানদাররা,আবাসনের নীচের দোকানগুলি খোলা যেতে পারে তবে সে ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে এবং মুখে মাস্ক লাগিয়ে আইন মেনে চললেই খোলা থাকবে সেই দোকান, এর পাশাপাশি সে দোকান গুলো তে কর্মীর সংখ্যা 50 শতাংশের বেশি রাখা যাবে না।তবে বলে রাখি এক্ষেত্রে সরকারের তরফ থেকে যে নতুন নিয়মটি বের করা হয়েছে সেটি লাগু থাকবে শুধুমাত্র গ্রীন জোন এলাকাগুলির জন্য।অর্থাৎ এরকম এলাকা যেখানে করোনার কোনো পজিটিভ কেস নেই এই মুহূর্তে। তবে হটস্পট জোন বা কনটেনমেন্ট জোন গুলিতে আগে যে নিয়মটি রয়েছে সেই লকডাউনের নিয়মই বজায় থাকবে।