বড় খবরঃ করোনায় অনাথ হওয়া শিশুদের পড়াশোনার দায়ভার নিল কেন্দ্র, ভবিষ্যতেও মিলবে 10 লক্ষ টাকা

দেশজুড়ে যে ভয়ঙ্কর মহামারীর দ্রাপট চলছে তার জেরে প্রাণ গিয়েছে অনেক তরতাজা মানুষের, আর এবার এই করোনা মহামারীর জেরে যে সকল শিশু এবং পড়ুয়ারা তাদের মা বাবাকে হারিয়েছে অর্থাৎ অনাথ হয়ে গিয়েছেন তাদেরকে অনিশ্চিত ভবিষ্যতের মুখে পড়তে হয়েছে। তবে এবার সেই সকল শিশু এবং স্কুল পড়ুয়াদের ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখেই কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে একটি বিশেষ প্রকল্পের ঘোষণা করা হল। কেন্দ্রের এই ঘোষণা অনুযায়ী জানানো হয়েছে করোনা আক্রান্ত হয়ে যে সকল শিশু ও স্কুলপড়ুয়াদের মা-বাবা মারা গিয়েছে এমন শিশু বা স্কুলপড়ুয়াদের যখন 18 বছরে পৌঁছবে তখন তাদের জন্য তৈরি থাকবে 10 লক্ষ টাকার তহবিল।

সেই টাকার মাধ্যমে উচ্চশিক্ষার জন্য মাসিক ভাতার ব্যবস্থা করা হবে আর যখন তাদের 23 বছর বয়স হবে তখন তারা এককালীন একটা টাকা পাবে। একথা খোদ প্রধানমন্ত্রীর তরফের টুইট করে জানানো হয়েছে। করোনার ধাক্কায় যারা অনাথ হয়ে গিয়েছে তাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করেই প্রধানমন্ত্রী তরফের একটি বৈঠক আয়োজিত করা হয় সেই বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যেখানে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় এই সকল অনাথ শিশু এবং স্কুল পড়ুয়াদের জন্য ফিক্স ডিপোজিট করা হবে পিএম কেয়ার ফান্ড থেকেই এর জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ দেওয়া হবে সেখান থেকেই আগামী দিনে।

তাছাড়া প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের তরফে জানানো হয় পিএম কেয়ার ফান্ডের অর্থ দিয়ে এই সকল অনাথ শিশুদের জন্য একটি বিশেষ প্রকল্প শুরু করা হবে যাতে তারা 18 বছর হওয়ার পর উচ্চশিক্ষার জন্য প্রতি মাসে ভাতা পাবে আর তার পাশাপাশি 23 বছর হলে তারা এক্ষেত্রে পেশাদারীর প্রয়োজনে কাজে লাগানোর জন্য এককালীন একটা টাকা পাবে। তবে এখানেই শেষ নয় এছাড়াও জানানো হয়েছে শিশুদের বিনামূল্যে পড়াশোনা ব্যবস্থা করা হবে,যারা এক্ষেত্রে 10 বছরের নিচের বয়সের তাদেরকে কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

অথবা যদি বেসরকারি স্কুলে পড়ানো হয় তাহলে তার যাবতীয় খরচও বহন করা হবে পিএম কেয়ার ফান্ড থেকেই। এক্ষেত্রে যাদের বয়স 11 থেকে 18 বছরের মধ্যে রয়েছে এবং করোনার জেরে যারা নিজের বাবা মাকে হারিয়েছে তাদের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকারি আবাসিক স্কুলে পড়াশোনার ব্যবস্থা করা হবে যদি দেখা যায় তারা পরিবারের অন্য সদস্যদের কাছে থাকতে চাই সেক্ষেত্রে তাদের কে বেসরকারি স্কুলে ভর্তির ব্যবস্থা করা হবে।

এর পাশাপাশি যদি কোনো অনাথ শিশু বা স্কুল পড়ুয়াদের উচ্চশিক্ষার জন্য ঋণ নিতে হয় তাহলে সে ক্ষেত্রে সাহায্য করবে কেন্দ্রীয় সরকার, সে ক্ষেত্রে ঋণের সুদ ও বহন করবে কেন্দ্রীয় সরকার প্রয়োজনে তাদের বৃত্তীয় দেওয়া হবে। আর আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের দরুন এই সকল অনাথ শিশু- কিশোর- কিশোরীদের 5 লক্ষ টাকা পর্যন্ত স্বাস্থ্য বীমার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে কেন্দ্রের তরফে।