অবশেষে সমস্ত নাটকের অবসান ঘটিয়ে বাড়ি থেকে পি চিদম্বরমের গ্রেফতার করল সিবিআই ও ইডি দপ্তরের অধিকারীরা..

অবশেষে টানটান উত্তেজনা শেষ করে পি চিদাম্বরম কে গ্রেফতার করল সিবিআই।তবে বিভিন্ন ভাবে গ্রেফতারি এড়ানো চেষ্টা করছিল প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী, তবে কোন মতে রেহাই পাওয়া গেল না গ্রেফতার হওয়ার হাত থেকে। অবশেষে তার বাড়ি জোড় বাগ থেকে তাকে গ্রেফতার করল সিবিআই আধিকারিকরা।আইএনএক্স মিডিয়া (Inx Media) মামলায় গ্রেফতারি করতে চেয়েছিল প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী কে।আর 24 ঘন্টার ও বেশি সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরও মিল ছিল না খোঁজ পি চিদম্বরমের।

তবে বুধবার দিন হঠাৎই কংগ্রেসের সদরদপ্তর হাজির হয়ে নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করেন পি চিদম্বরম।আর তার পরই সঙ্গে সঙ্গে চিদাম্বারাম কে ধরতে রওনা দেয় সিবিআই ও ইডির দপ্তরের লোকেরা।কিন্তু সেখানে সিবিআই অধিকারীরা পৌঁছবার আগেই সদর দপ্তর ছেড়ে চলে যান প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী।পরে খোঁজ পাওয়া যায় তিনি নাকি তার বাড়ি চলে গেছেন আর তারপর সেখান থেকে তার পিছু ধাওয়া করে সিবিআই আধিকারিকরা ও।

ঘরের দরজা না খোলায় অবশেষে সিবিআই অধিকারীরা পাঁচিল টপকে তার ঘরে প্রবেশ করেন।একথা কারও জানতে বাকি নাই যে গতকাল থেকে খোঁজ মিলছিল না প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর। যদিও তাঁর আইনজীবী কংগ্রেস নেতা কপিল সিব্বল দাবি করেন, ফেরার হওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই। সন্ধেয় নিজের অফিসেই ছিলেন চিদম্বরম। এদিন দিল্লিতে কংগ্রেসের সদর দফতরে উদয় হলেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। আর তারপরই তিনি দাবি করেন আই এন এক্স মিডিয়া মামলায় আমি অভিযুক্ত নয় এবং আমার পরিবারের কেউ অভিযুক্ত নয়।আদালতে এই বিষয় নিয়ে আমার নামে কোন প্রকার চার্জশিট পেশ করা হয়নি সিবিআই ও ইডির তরফ থেকে। তবে এই বিষয় নিয়ে তাকে সাংবাদিকরা বিভিন্ন প্রশ্ন করলে তিনি কোন প্রকার প্রশ্নের জবাব দেননি।

অবশেষে দু-তিন মিনিট থেকে দফতর ছেড়ে চলে যান পি চিদম্বরম। রওনা দেন জোড়বাগে নিজের বাড়ির উদ্দেশে। তাঁর বাড়ির বাইরে জড়ো হতে থাকেন কংগ্রেস কর্মীরা। বন্ধ করে দেওয়া হয় তার বাড়ির দরজাও। তবে সেখানেও পৌঁছে যায় সিবিআই। তবে হাল ছাড়েনি সিবিআই আধিকারিকরাও পাঁচিল টপকেই ঢুকে পড়েন চিদম্বরমের বাড়িতে।সিবিআইয়ের পর চিদম্বরমের বাড়িতে পৌঁছে যায় ইডির দলও।