স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের চিঠির পরেই বিজ্ঞপ্তি জারি নবান্নের, লকডাউন অমান্য করলেই দায় করা হবে মামলা…

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে এই মুহূর্তে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে 8453 জন,অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গে এই করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা 126 জন। তবে বাংলায় লকডাউনের যে নিশ্চয়তা সেটি নিয়ে একাধিকবার প্রশ্ন উঠছে রাজনৈতিক মহলে,বাংলার বহু জায়গাতে লকডাউন এর শর্ত কঠোরভাবে মানা হচ্ছে না এমনটা শোনা যাচ্ছে। যার দরুন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফ থেকে রাজ্যের মুখ্যসচিব ও রাজ্যের পুলিশ ডিজিকে কড়া চিঠি পাঠানো হয়েছে।

শুধু তাই নয় কেন্দ্রের পরামর্শ পাবার পর রাজ্য সরকার কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চলেছেন সে ব্যাপারেও রিপোর্ট পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল এই চিঠিতে। যার ফলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের এইরকম এক চিঠি পাওয়ার 24 ঘণ্টার মধ্যে নতুন বিজ্ঞপ্তি জারি করা হল নবান্নের তরফ থেকে এমনটাই অনুমান করা হচ্ছে। জারি করা এই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা আইন 2005 এর শর্ত লংঘন করলে পুলিশ সাব ইন্সপেক্টর থেকে শুরু করে উর্ধ্বপাতন সমস্ত কর্তাদের আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার অধিকার দেয়া হল। যদিও এই বিষয় নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের চিঠি এবং রাজ্যের এই পদক্ষেপ সরাসরি কোনো সম্পর্ক রয়েছে কী না সে বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা মিলেনি।তবে এই বিষয় নিয়ে রাজনৈতিক বিরোধের মতামত কেন্দ্রের এরকম এক বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার পরেই কী রাজ্য সরকারের তরফ থেকে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।তবে এখন দেখার বিষয় হচ্ছে যে নবান্নের তরফ থেকে জারি করা এই বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশকর্তারা কতটা কঠোরভাবে এই নিয়ম লাগু করতে পারেন।কারণ এই বিষয় নিয়ে একাধিকবার বিরোধী মহল থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে খাতা-কলমে দেখানো হলেও রাজ্য সরকার পুলিশকে কতখানি সক্রিয় করতে পারবে তার ওপর অনেক কিছু নির্ভর করছে।যদিও এ বিষয়ে নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার তরফ থেকে রাজ্যকে যে চিঠি দেওয়া হয়েছিল সেখানে কিছু বিশেষ দিক আলোচনা করা হয়েছিল কেন্দ্রের তরফ থেকে, দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যেখানে লকডাউন কে কঠোর ভাবে পালন করা হচ্ছে সেখানে পশ্চিমবঙ্গের লকডাউন ঠিকমতো মানা হচ্ছে না, এমনকি অত্যাবশ্যক নয় এমন অধিকাংশ দোকানকে ছাড় দেয়া হয়েছে।এর পাশাপাশি সবজি-মাছের বাজারেও কোনো নিয়ন্ত্রন নেই এবং কলকাতার কয়েকটি এলাকায় লকডাউন মানা হচ্ছে না যার মধ্যে নাম ছিল মানিকতলা, নারকেলডাঙা, রাজাবাজার, তপসিয়া, মেটিয়াবুরুজ, গার্ডেনরিচ, ইকবালপুরের তার পাশাপাশি কিছু ক্ষেত্রে ধর্মীয় জমায়েত চলছে সেখানে মানা হচ্ছে না সোশ্যাল ডিসটেন্সিং এর শর্তকে এমনটাও জানানো হয়েছিল। তাই রাজ্যে এই করোনা সংক্রমণ রুখতে দ্রুত এসব বন্ধ করতে হবে এমনটাই জানানো হয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে জারি করা চিঠিতে। তাই আইন প্রসঙ্গ টেনে এনে রাজ্যজুড়ে লকডাউনকে কঠোরভাবে পালনের পরামর্শ দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

Related Articles

Close