রাষ্ট্রসঙ্ঘে উস্কানিমূলক মন্তব্যের জেরে এবার পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে দায়ের করা হল মামলা…

যবে থেকে ভারত সরকার কাশ্মীর থেকে অনুচ্ছেদ 370 কে বিলোপ করছে তবে থেকে পাকিস্তান সরকার যেন ভারতের উপর খোঁচে রয়েছে। পাকিস্তান অনবরত চেষ্টা করেই চলছে কীভাবে ভারতকে রাষ্ট্রসঙ্ঘের কাছে নিচু করা যেতে পারে। এমনকি বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে গিয়ে পাকিস্তানের সরকার আবেদন জানাচ্ছে ভারতের এই পদক্ষেপকে সমর্থন না করার জন্য। তবে সব শেষে যায় হোক পাকিস্তানের এমন মন্তব্যের জেরে কোন দেশ সাড়া দেয়নি এমনকি তাদের পরম বন্ধু চীন ও এই বিষয় নিয়ে নাক গলাতে চাইছে না।

তবে এখন যে খবরটি বেরিয়ে আসছে সেটি একপ্রকার চাঞ্চল্যকর খবর বললেই চলে কারণ এবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে বিহারের মুজফরনগরের আদালতে। এই মামলা দায়েরকারী একজন পেশায় আইনজীবী যার নাম সুধীর কুমার ওঝা। গত শনিবার দিন আইনজীবী সুধীর কুমার ওঝা মুজফরনগরের চীফ জুডিসিয়াল কোর্টে মামলা দায়ের করেছেন। তার দায়ের করা এই অভিযোগে বলা হয়েছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান আপত্তিজনক মন্তব্য প্রকাশ করছেন রাষ্ট্রসঙ্ঘের জেনারেল অ্যাসেম্বলিতে।

শুধু তাই নয় এর পাশাপাশি পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ভারতকে পরমাণু হামলা করার হুমকিও দিয়েছেন।আর তার জন্যই সুধীরকুমার ওঝা এইদিন আদালতের কাছে অনুরোধ করে জানান তার এইরূপ অভিযোগের ভিত্তিতে যেন ইমরান খানের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করার অনুমতি দেওয়া হয়। এদিন তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন কাশ্মীরে 370 ধারা বিলোপের সিদ্ধান্তের পর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে যে মন্তব্য বেরিয়ে আসে তা ছিল উস্কানিমূলক, যা দেশের সংহতিকে নষ্ট করবে।

তবে অন্যদিকে রাষ্ট্রসঙ্ঘে জেনারেল এ্যাসেম্বলিতে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর এরকম এক বক্তব্যের পর তার উপযুক্ত জবাব দিয়েছেন ভারতের বিদেশ মন্ত্রকও।পাক প্রধানমন্ত্রী এরকম ভাষণ এর পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের কেন্দ্রীয় বিদেশমন্ত্রকের প্রথম সচিব বিদিশা মৈত্র বলেন, ইমরানের এরকম এক মন্তব্য উস্কানিমূলক যা সত্যিই ঘৃণার যোগ্য। এর আগে, রাষ্ট্রসংঘের জেনারেল অ্যাসেম্বলির মঞ্চ থেকে প্রায় 50 মিনিটের বক্তৃতা দেওয়ার সময় ইমরান খান পারমাণবিক যুদ্ধের নিন্দা করতে গিয়ে আসলে অর্ধেক সময়টাই কাশ্মীর ও ভারত নিয়ে বক্তব্য রেখেছেন। তবে ইমরান খানের সব অভিযোগের জবাব দিয়েছে ভারত।

ইমরান খানের বক্তব্যের জবাবে ভারত তার রাইট টু রিপ্লাই ব্যবহার করেছে। এই দিন পাক প্রধানমন্ত্রী কাশ্মীর প্রসঙ্গে বার্তা দিতে গিয়ে বলেন যে অবিলম্বে কাশ্মীর থেকে “অমানবিক কারফিউ” অপসারণ করা উচিত, সাথে সাথে সমস্ত আটক করা ব্যক্তিদের খুব শীঘ্রই মুক্ত করা উচিত।তবে আরো বলে রাখি এই দিন ইমরান খান বক্তব্য পেশ করার কিছুক্ষণ আগেই ভারতের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী শান্তির বার্তা দিয়েছিলেন তবে এবার ইমরান খান বক্তব্য রাখার সময় ঠিক তার বিপরীতে কথা বললেন। এদিন মোদীজি তার বক্তব্য রাখার সময় বলেন ভারত হল এমন একটি দেশ যা বিশ্বকে “যুদ্ধ নয় বুদ্ধ” দিয়েছে। তবে আন্তর্জাতিক মহলে পাকিস্তান বারবার কাশ্মীর ইস্যুতে সমর্থন চাইলেও ছবিটা প্রতিবারই বিপরীত।তবে আরো বলে রাখি, কাশ্মীর নিয়ে বিজেপি সরকারের এই সিদ্ধান্তকে বিশ্বের সব শক্তিশালী দেশই প্রতক্ষ্যভাবে সমর্থন জানিয়েছে।