বাংলায় রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের মামলা

বাংলায় বিধানসভা  নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হয়েছে ২ মে ২০২১।  এরপর থেকেই  ছড়িয়ে পড়েছে  হিংসার রাজনীতি৷ দুদলের কর্মী সমর্থকরা খুন জখম হচ্ছেন খবর পাওয়া যাচ্ছে৷  এই বিষয় নিয়ে  মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টে মামলা গড়ায়। বিজেপির মুখপাত্র গৌরব ভাটিয়া পিটিশন দাখিল করেছেন  ভোট পরবর্তী হিংসা, খুন, রক্তক্ষয়ী রাজনীতির জন্য৷ এই সব নিয়ে তিনি  সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। একটি NGO সংস্থা সুপ্রিম কোর্টে আবেদন দাখিল করেছেন৷

 

তাদের দাবি,  পশ্চিমবঙ্গে রাষ্ট্রপতি শাসন চালু  করা হোক৷ এই  আবেদনে জানানো হয়েছে , রাজ্যের সাংবিধান পরিকাঠামো পুরোপুরি ভেঙে গিয়েছে। এই সঙ্কটকালে ৩৫৬ ধারা জারি করে  রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন চালু করার দরকার।

ভাটিয়া নিজের আবেদনে বলেছেন, “তৃণমূল কংগ্রেস রাজ্যের সেই সমস্ত মানুষদের নিশানা করছে যারা একুশের নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসকে ভোট দেয়নি।” বিজেপি কর্মী অভিজিৎ সরকার এর হত্যা মামলার  উল্লেখ করে ভাটিয়া বলেন, এই ঘটনায় প্রমাণিত তৃণমূলের আশ্রয়ে পশ্চিমবঙ্গে গণতন্ত্রের ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে৷

করোনা মহামারীর জেরে “স্কুল ফি” ১৫% কমানোর রায় সুপ্রিম কোর্টের

মৃত্যুর কিছু আগেও অভিজিৎ সরকার ফেসবুকে লাইভে বলেন,  “তৃণমূলের গুণ্ডারা শুধু তাঁকে মারেই নি, তাঁর বাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েছে আর তাঁর পোষা কুকুরগুলিকেও মেরেছে।”

ইন্ডিক কালেক্টিভ ট্রাস্ট নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা  সুপ্রিম কোর্টে পিটিশন দাখিল করেছে,  বাংলায় ২ রা মে ভোট  গণনার পর তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা বিজেপি  এবং অন্য বিরোধী দলের কর্মীদের উপর প্রবল অত্যাচার করছে। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা সম্পূর্ণ ভাবে ভেঙে পড়েছে। সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির নেতৃত্বে একটি তদন্তকারী দল (SIT) গঠন করার আবেদন জানানো হয়েছে৷ পশ্চিমবঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের CRPF সেনা মোতায়েন করার দাবি তোলা হয়েছে।