নতুন খবরলাইফ স্টাইল

বাতিল করা হচ্ছে মমতা বন্দোপাধ্যায় দ্বারা পরিচালিত রূপশ্রী প্রকল্পের আবেদন পত্র…

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় নানান ধরনের প্রকল্প চালু করেন। তার মধ্যে ‘রুপশ্রী’ হলো একটি প্রকল্প। এই বছরের এপ্রিল মাস থেকে এই প্রকল্প শুরু হয়েছিল। এই প্রকল্পের নিয়ম ছিল কোন মেয়ের বিয়ে হলে এককালীন 25 হাজার টাকা দেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। এর জন্য বিয়ের এক থেকে দু মাস আগে আবেদনপত্র জমা দিতে হবে। তারপরও ওই দপ্তরে আধিকারিকরা সে আবেদনপত্র উপর ভিত্তি করে খতিয়ে দেখেন। সমস্ত কিছু ঠিকঠাক থাকলে অর্থ দেওয়া হয়।আর সেই মতো অন্যান্য জেলা সহ পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়ে 4102 জনকে অর্থাৎ মোট 10 কোটি 25 লক্ষ 50 হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে আবার কিছুটা কারচুপি। তাই পূর্ব বর্ধমান জেলার আবেদন পত্র পরীক্ষা আরো কড়াকড়ি হয়েছে। আর এর ফলেই আবেদনপত্রের সংখ্যা কমতে থাকে।

পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন থেকে জানানো হয়েছে এপ্রিল মাসে আবেদনপত্র বাতিল হয়েছিল মাত্র 17 টি। আর মে মাসে বাতিলের সংখ্যা ছিল 44 টি। এবং জুন মাসে সংখ্যা বেড়ে 65 টি হয়ে যায়। অবশ্য জুলাই মাসে একটু কমে 46 এ দাঁড়ায়। আগস্ট মাসে আবার বেড়ে হয়ে যায় 49 টি। সেপ্টেম্বর মাসে এর সংখ্যা অনেকটাই কমে 22 টি হয়। অক্টোবরে বাতিলের সংখ্যা দাঁড়ায় মাত্র 15 টি। আর চলতি মাস অর্থাৎ নভেম্বর মাসে এখনো পর্যন্ত বাতিলের সংখ্যা 30 টি। এই প্রকল্প চালু হওয়ার পর থেকে এখনও পর্যন্ত বাতিলের সংখ্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে 273 টি।পরিসংখ্যানে দেখা গিয়েছে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে ওঠা এই প্রকল্পকে কাজে লাগিয়ে অনেকেই অসাধু উপায় অবলম্বন করছেন।আর এর জেরেই সরকার কড়া পদক্ষেপ নেওয়াতে আস্তে আস্তে কমছে আবেদনপত্রের সংখ্যা।এই প্রকল্পের সুবিধা নিতে হলে পরিবারের বার্ষিক আয় দেড় লক্ষ টাকার নিচে হতে হবে। আর এ ছাড়াও পাত্র-পাত্রীকে স্বঘোষিত লিখিত দিতে হবে এর আগে তাদের কোন দিন বিয়ে হয়নি।


পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে এখনো পর্যন্ত 6310 টি আবেদনপত্র জমা পড়েছে।আর তার মধ্যে 6280 টি আবেদন গ্রহণ করা হয়েছে। অসাধু উপায়ে যাতে অবলম্বন না করতে পারে তাই কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। পাত্র-পাত্রী বয়ান অনুযায়ী তার সঠিক কি ভুল তা বিচার করে আবেদনপত্র গ্রহণ করা হয়।
এখনো পর্যন্ত প্রায় 6310 টি আবেদনপত্র জমা করা হয়েছে তার মধ্যে 5277 টি আবেদনপত্র সঠিক কিনা যাচাই করা হয়েছে। এই সত্যতা যাচাই করার পর 4500 টি আবেদন পত্রে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আর এর মধ্যে আবার 4102 টি আবেদনের জন্য 10 কোটি 25 লক্ষ 50 হাজার টাকা বরাদ্দ হয়েছে।
যে সব আবেদনপত্র গুলি বাতিল করে দেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে দুবার বিয়ে হওয়া বা সরকারি নিয়ম না মানা অথবা বয়স না হওয়া ইত্যাদি কারণ রয়েছে। এই জেলার মধ্যে সবথেকে বেশি আবেদন পত্র বাতিল হয়েছে কেতুগ্রাম 1 ব্লকে। এখানে বাতিল আবেদন পত্রের সংখ্যা 30 টি।

Related Articles

Back to top button