কৃষি আইন বাতিলে বিজেপির লাভ না ক্ষতি? C-Voter সমীক্ষায় উঠে এল চমকে দেবার মতো তথ্য

গুরু নানকের জন্মদিনের দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে গিয়ে করেন একটি বড় ঘোষণা। প্রায় এক বছরের বেশি সময় ধরে যে কৃষক আন্দোলন চলছিল কৃষি আইনের বিরুদ্ধে, সেই কৃষি আইন বন্ধ করার ঘোষণা করে দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদি। এ কথা শোনার পর থেকেই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বিজেপির লাভ-ক্ষতি নিয়ে পর্যালোচনা শুরু করে দিয়েছিলেন। অবশেষে IANS-C Voter Snap Opinion Poll এ সামনে এসেছে, কৃষি আইন রদ করার ঘোষণার পর বিজেপির জনপ্রিয়তার কোন ক্ষতি হয়নি। এই সমীক্ষা চালানো হয়েছিল আইন রদ করার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই।

প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার প্রসঙ্গে ৫২ শতাংশের বেশি মানুষ জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী একেবারে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই কৃষি আইন যথা যুক্ত ছিল না। আবার অন্যদিকে ৫০ শতাংশের বেশি মানুষ দাবি করেছেন, এই আইন কৃষকদের জন্য লাভজনক ছিল। ৩০.৬ শতাংশ মানুষ যেখানে দাবি করেছেন, এই আইন কৃষকদের স্বার্থ ছিল না। সেখানে আবার ৪০.৭ শতাংশ মানুষ সরকারের প্রশংসা করেছেন এই আইন বন্ধ করে দেওয়ার জন্য।

এই আইন কতখানি কৃষকদের স্বার্থ ছিল প্রশ্ন করায় সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করা ৫৮.৬ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, মোদি সরকার কৃষকদের স্বার্থে কাজ করেছেন। অন্যদিকে ২৯ শতাংশ মানুষের দাবী অনুযায়ী, মোদি সরকার কৃষক বিরোধী এক সরকার। তবে বেশিরভাগ মানুষ মোদি সরকারকে সমর্থন করেছেন এই বিষয়ে।

এই আইনে বিরোধী দলগুলির কতখানি ভূমিকা ছিল প্রশ্ন করায়,মানুষ বলেছেন, বিজেপিকে বেকায়দায় ফেলার জন্য এই আইনের শরণাপন্ন হয়ে বিরোধী দলগুলি আন্দোলনে মদত দিয়েছিল। সমীক্ষায় ৫৬.৭ শতাংশ মানুষ স্বীকার করেছেন এই আন্দোলনে বিরোধী দলের মধ্যে ছিল, মাত্র ৩৫ শতাংশ মানুষের মত,এই আন্দোলন শুধুমাত্র কৃষকদের ছিল।

আগামী দিনে প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা কতখানি প্রভাব ফেলবে নির্বাচনের উপর প্রশ্ন করায় ৫৫ শতাংশ বেশি মানুষের মত অনুযায়ী, এই সিদ্ধান্ত নির্বাচনে ব্যাপক আকারে প্রভাব ফেলবে অন্যদিকে মাত্র ৩১ শতাংশ মানুষের মত অনুযায়ী, এই সিদ্ধান্তের কোনো প্রভাব পড়বে না আগামী নির্বাচনে।