ব্রেকিংঃ পালিত হবে কড়া ভাবে লকডাউন, কলকাতায় কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল 33 টি…

করোনা সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য নয়া পদক্ষেপ নিল রাজ্য সরকার। সম্প্রতি দীর্ঘদিন ধরে লকডাউন চলার পর সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রা স্বাভাবিক করে তোলার জন্য লকডাউনকে শিথিল করা হয়েছিল সরকারের তরফ থেকে। কিন্তু করোনা সংক্রমণের হার থামানো যায়নি। হু হু করে বেড়ে যাচ্ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এইভাবে যদি করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকে তাহলে একসময় পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাবে। তাই সাধারণ মানুষের সুরক্ষার কথা ভেবে এমন সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার।

সম্প্রতি 9 জুলাই অর্থাৎ বৃহস্পতিবার থেকে রাজ্যের সমস্ত কন্টেইনমেন্ট জোন গুলিতে ফের কড়া লকডাউন ঘোষণা করল রাজ্য সরকার। এই লকডাউন 9 জুলাই বিকেল পাঁচটা থেকে শুরু হবে।শুধু তাই নয় করোনা সংক্রমণকে আটকানোর জন্য কন্টাইনমেন্ট জোনের সংখ্যা বর্তমানে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে আগের তুলনায়। এর আগে কলকাতায় 18 টি কন্টেইনমেন্ট জোন ছিল। এখন তা বাড়িয়ে 33 টি করা হয়েছে। এবং উত্তর 24 পরগনায় মোট কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা রয়েছে 219 টি। দক্ষিণ 24 পরগনায় মোট কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে 153 টি ।

হুগলিতে মোট কন্টেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা 27 টি। হাওড়াতে কন্টেইনমেন্ট জনসংখ্যা বেড়ে হয়েছে 146 টি। করোনা সংক্রমণ রুখতে শুধুমাত্র কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা বাড়ানো হয়নি জোনের পরিধিও বাড়ানো হয়েছে। রাজ্য সরকার তরফ থেকে আগে যেগুলিকে বাফার জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিল সেগুলিকেও এখন কন্টেইনমেন্ট জোনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। রাজ্যের কোন কোন এলাকাকে কনটেইনমেন্ট জোনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে তা জানতে হলে এগিয়ে বাংলা ওয়েবসাইট এ সার্চ করলে দেখতে পেয়ে যাবেন।

এছাড়াও কন্টেইনমেন্ট জোনগুলিতে সেখানকার পুলিশ প্রশাসনও প্রচার চালাবে। যাতে সেখানকার সাধারণ মানুষ লকডাউন কঠোরভাবে পালন করেন। এমন কী কন্টেইনমেন্ট জোনগুলিতে সরকারি-বেসরকারি অফিস, কলকারখানা এবং সমস্ত ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সরকারের তরফ থেকে। সমস্ত রকম যান চলাচল বন্ধ থাকবে ঐ সমস্ত এলাকা গুলিতে। তবে শুধুমাত্র নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য এবং অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের দোকান খোলা থাকছে। কন্টেইনমেন্ট এলাকাগুলিতে কোনরকম ভিড় করা যাবে না। এমনকি কনটেইনমেন্ট জোনে অন্তর্গত কেউ অফিসে যেতে পারবে না।