তৃণমূল মন্ত্রীদের সামনেই ফের ‘জয় শ্রীরাম’, উত্তপ্ত কাঁচরাপাড়া…

আরো একবার ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনিকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠলো কাঁচরাপাড়া৷ শুরু হয়ে বিক্ষোভের৷ পরিস্থিতি কে নিয়ন্ত্রণে আনতে যেমন একদিকে পুলিশি লাঠিচার্জ চলেছে, তেমনই নেমেছে ব়্যাফও। সমগ্র ঘটনাকে কেন্দ্র করে শনিবারের কাঁচরাপাড়ার ছবিটা অন্যরকম আকার ধারণ করেছে। তথ্য অনুসারে জানা গিয়েছে, শনিবার এখানে তৃণমূলের দলীয় বৈঠক ছিল৷ সেই বৈঠকে যোগ দিতে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, সুজিত বসু থেকে শুরু আরও অনেকের আসার কথা ছিল৷ তৃণমূল নেতাদের দেখে তাদের সামনেই বিজেপি সমর্থকরা ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিতে শুরু করে৷ দেখতে দেখতে বিক্ষোভ শুরু হয়৷ পরিস্থিতি ক্রমশই উত্তপ্ত হতে শুরু করে তা নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে লাঠিচার্জ করে বলে জানা যায়৷ সেই সঙ্গে আসে ব়্যাফও৷ একদিকে বৈঠক, অন্যদিকে এই বিক্ষোভ৷ সব মিলিয়ে কাঁচরাপাড়ায় উত্তপ্ত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে৷ ইতিমধ্যে এই ঘটনাকে কেন্দ্র এলাকায় আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে৷ দোকানপাট বন্ধ করে দেন বিক্রেতারা৷ এদিকে ঘটনাস্থলে দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু সাংবাদিকদের সম্মুখীন হন৷ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘এই সংস্কৃতি এই রাজ্যের নয়৷ যারা করছে তারা করছে৷ এই রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার আছে, থাকবে৷ যারা দখল দারির রাজনীতি করে থাকে তাদের মনে রাখতে হবে, মানুষ এই রাজনীতি পছন্দ করে না৷’ বিগত কয়েক মাস ধরে এই জয় শ্রীরাম স্লোগানে কেন্দ্রের শাসক দলের বিরুদ্ধে তোপ দেগে ছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।আর গত দুদিন আগে বাটপার আর মমতা গাড়ির সামনে “জয় শ্রী রাম” স্লোগান উঠে আসায় তা শুনে মেজাজ হারানো মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এমনকি এর জন্য তিনি গাড়ি থেকে নেমে রীতিমতো সাধারণ মানুষের দিকে ধেয়ে যান তারপর তিনি বলেন কি সাহস এদের দেখো গালাগালি দিচ্ছে ওরা । গুন্ডামি, মস্তানি হবে না বলে হুঁশিয়ারি দেন তিনি এদিন। এরপরেই সমস্ত বাড়িতে নাকা চেকিং চালানোর জন্যে পুলিশকে নির্দেশ দেন প্রশাসনিক প্রধান।

এর আগে ভোটের মরসুমে মেদিনীপুরে ভোটের প্রচারে যাবার সময় মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী কে দেখে একদল যুবক জয় শ্রীরাম স্লোগান দেয়। আর ঠিক সেই একই রকমই  ঘটনা ঘটে ভাটপাড়ায়।