জারি সতর্কবার্তা! করোনার মাঝেই ব্রেন ইটিং অ্যামিবার আতঙ্ক আমেরিকায়

করোনা আতঙ্কে ত্রস্ত গোটা বিশ্ব৷ তার ওপর নতুন ‘মিউট্যান্ট’ স্ট্রেন নিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি হচ্ছে । এর মধ্যে আবার মগজখেকো অ্যামিবার ভয় বাড়ছে আমেরিকায়। একবার শরীরে ঢুকলেই মস্তিষ্কে বাসা বাঁধছে।মানুষের স্নায়ুকোষকে নিমেষে জখম করতে পারে। পরিণাম ভয়ঙ্কর মৃত্যু। বিশেষত দক্ষিণের রাজ্যগুলিতে নদী-নালা, ঝর্না, উষ্ণ প্রস্রবণের পরিষ্কার জলে ছড়িয়ে পড়ছে৷ ফ্লোরিডা সহ কয়েকটি রাজ্যে সতর্কতা জারি করা হয়েছে মার্কিন সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) এর তরফে৷

 

 

গত কয়েক মাসে মিনেসোটা, কানসাস ও ইন্ডিয়ানা থেকে অ্যামিবা সংক্রমণের খবর এসেছে। । সুইমিং পুলে বা যে কোনও লেক বা নদীর জলে নামতে নিষেধ করা হয়েছে। ছোট বাচ্চা ও প্রবীণদের বেশি সাবধান থাকতে বলা হয়েছে।উত্তর ক্যারোলিনায় কয়েকমাস আগেই এই ব্রেন-ইটিং অ্যামিবার খোঁজ মিলেছিল। এর নাম নাইগ্লেরিয়া ফোলেরি (Naegleria fowleri)। নদী, পুকুর, থেকে সুইমিং পুল, যে কোনও জলেই এদের অবাধ বিচরণ৷ উষ্ণ জলে দ্রুত কোষ বিভাজন করে। ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় ভাল থাকে এই অ্যামিবারা। শিল্পাঞ্চল সংলগ্ন এলাকায়, দূষিত বদ্ধ জলেও থাকে। ক্লোরিনেটেড নয় এমন বদ্ধ জলে দ্রুত ছড়ায় অ্যামিবারা।

বিহারে সাফল্যের পর এবার লক্ষ্য বাংলা, প্রচারে আসছেন যোগী আদিত্যনাথ

 

অস্ট্রেলিয়ার একটি হ্রদের জলে ১৯৬০ সালে প্রথম এই ব্রেন ইটিং অ্যামিবাদের সন্ধান মিলেছিল। উত্তর ক্যারোলিনার স্বাস্থ্য দফতরের সমীক্ষা বলছে, ১৯৬২ সাল থেকে ২০১৮ পর্যন্ত এই অ্যামিবা দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১৪৫ জন। বিশেষজ্ঞরা বলেন, কোনও ভাবে জলের সঙ্গে একে গিলে ফেললে ততটা ক্ষতি হবে না৷ কিন্তু কোনওভাবে নাক দিয়ে শরীরে প্রবেশ করলেই সোজা মস্তিষ্কের কোষে গিয়ে সংক্রমণ সৃষ্টি করছে৷

এর ফলে যে রোগ হয় তাকে বলে নাইগ্লেরিয়াসিস বা প্রাইমারি অ্যামিবিক মেনিনগোএনসেফেলাইটিস (PAM)। এর উপসর্গ জ্বর, মাথাব্যথা, বমি৷ দ্রুত অ্যান্টি-ফাঙ্গাল ড্রাগ না দিলে মস্তিষ্কের কোষ ছিঁড়েখুঁড়ে খেয়ে ফেলে এই প্রাণিরা।