এই মূহুর্তে সবচেয়ে বড় খবর হয়ে গেলো জোট বিজেপি – শিবসেনার, দেখে নিন কারা কয়টি আসনে লড়বেন।

শেষমেষ ভোট হওয়ার কিছুদিন আগে বিজেপি-শিবসেনা জোড়া লাগার খবর এলো। সোমবার সাংবাদিক বৈঠকে পাশাপাশি বসে বৈঠক করবেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এবং শিবসেনা সুপ্রিমো উদ্ধব ঠাকরে। মহারাষ্ট্রে আসন সমঝোতা নিয়ে বৈঠক হবে বলে জানা গিয়েছে। কিছুদিন আগে দুই দল যখন বিভিন্ন ইস্যুতে বিপরীত দিকে যাচ্ছিলেন। সেই সময় রাম মন্দির নিয়ে মোদী সরকারের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছিলেন উদ্ধব ঠাকরে। তখন স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল যে দুই দল লোকসভা নির্বাচনে একা একাই লড়তে চাই। শিবসেনা জানিয়েছিলেন লোকসভা নির্বাচনে তারা একাই লড়বে। আবার মহারাষ্ট্রে এসে অমিত শাহ বলেন, তারা একা লড়তে ভয় পান না।

কিন্তু আজ বয়ে যাচ্ছে ফিফটি- ফিফটি আসনে তারা লড়তে চাইছে। উত্তর প্রদেশের পর মহারাষ্ট্র হলো দ্বিতীয় বৃহত্তম লোকসভা আসন সংখ্যা বিশিষ্ট রাজ্য। তাই বিজেপির কাছে এই রাজ্যে যে তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সূত্রে খবর থেকে জানা যায়, 48 টি আসনের মধ্যে 25 টি আসান বিজেপি এবং বাকি 23 টি শিবসেনা পেতে পারে। এরপর হঠাৎ জোর করে লড়াই করার সীদ্ধান্ত কেন? এই প্রশ্নেরই উত্তর খুঁজচ্ছে গোটা রাজনৈতিক মহল। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, 2014 সালের মতো মোদী হাওয়া এখন আর নেই। বিজেপি এবং শিবসেনা যদি পৃথক পৃথকভাবে ভোটের লড়াই তাহলে কংগ্রেস ও এনসিপি জোটের ফায়দা হয়ে যাবে। কেন্দ্রের ক্ষমতা ধরে রাখতে শিবসেনার সাথে জোট করতে রাজি অমিত শাহ। গত সপ্তাহে উদ্ধবের সাথে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডণবীশ তার বাড়িতে সাক্ষাৎকার করতে যান।

এরপরে শিব সেনার মুখে নরম সুর শোনা যায়। গতবার লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি শিবসেনা পৃথক পৃথক ভাবেই লড়াই করেন। নির্বাচনের পরবর্তী কালে তাদের জোট হয়। কিন্তু গত তিন বছর ধরে বিভিন্ন ইস্যুতে সমালোচনা করতে দেখা যায় 3 দশকের এনডিএ সঙ্গী শিবসেনাকে।লোকসভা নির্বাচন ছাড়াও দুই দলের মধ্যে মহারাষ্ট্রের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে আসনের রফা হয়ে গেছে। সূত্র অনুযায়ী আগামী বিধানসভা নির্বাচনে দুই দলই সমান সমান আসনে লড়বে।

Related Articles

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Close