বাম শিবিরে বড়সড় ধাক্কা! বামেদের বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে কানাইয়া যোগ দিচ্ছেন কংগ্রেসে

কিছুদিন ধরেই জল্পনা চলছিল কানাইয়ার কংগ্রেসে যোগদানের ব্যাপারে। আর সেই জল্পনাকে সত্যি করে কানাইয়া কুমার ২৮ সেপ্টম্বর যোগ দিচ্ছে কংগ্রেসে। জেএন ইউ (JNU) এর ছাত্র রাজনীতি করে উঠে আসা কানাইয়া সি পি আই এম এর সদস্য ছিলেন। কয়েকদিন আগে তার দেখা হয় কংগ্রেসের বড় নেতা রাহুল গান্ধীর সঙ্গে। আর তারপর থেকেই শুরু হয় কানাইয়া কুমারের কংগ্রেসে যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা।

জে এন ইউ এর ছাত্র আন্দোলন করার সময় প্রায় গোটা দেশেই নজর কেড়েছিল এই কানাইয়া তার বক্তৃতার মাধ্যমে। 2019 সালের লোকসভা নির্বাচনে বিহারের বেগুসারাই কেন্দ্রে থেকে বিজেপি নেতা গিরিরাজ সিং এর বিরুদ্ধে সি পি আই এম এর হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন তিনি। যদিও তিনি গিরিরাজ এর কাছে হেরে যান। গত লোকসভা নির্বাচনের সময় কানাইয়া কুমার কে নিয়ে গোটা দেশজুড়ে যথেষ্ট উন্মাদনা তৈরি হয়েছিল তার ভাষণের জন্য। পশ্চিমবঙ্গ সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কানাইয়া কে নিয়ে প্রচার চালিয়েছে বামেরা। সিএএ এনআরসি বিরোধী আন্দোলনের সময় যথেষ্ট সক্রিয় ছিল এই জননেতা। কিন্তু এবার এই নেতাই সিপিআইএম ছেড়ে কংগ্রেসে যোগ দিচ্ছেন।

গতবছর বিধানসভা নির্বাচনে বিহারে কংগ্রেসের ফল খুব খারাপ হয়েছিল। বলা যেতেই পারে, কংগ্রেসের ব্যর্থতাতেই অল্পের জন্য ক্ষমতা দখল করতে পারেনি আরজেডি নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোট। ৭০ টি আসনে লড়ে মাত্র ১৯ টিতে জয়ী হয় কংগ্রেস। সেখানে ১৪৪ টি আসনে লড়ে আরজেডি ৫০ শতাংশের বেশি আসনে জয়ী হয়েছিল। কানাইয়ার অন্তর্ভুক্তিতে বিহারে কংগ্রেসের বেহাল অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয় কিনা সেটাই এখন দেখবার।

Advertisements

তুলনা মূলকভাবে বিহারে অল্প আসনের নির্বাচনী ভালো ফল করেছিল বামেরা। তাই কানাইয়া সিপিআইএম ত্যাগ বামেদের কাছেও নিঃসন্দেহে বড় ধাক্কা। কারণ তরুণ বাম কর্মী সমর্থকদের মধ্যে যথেষ্ট জনপ্রিয় ছিলেন কানাইয়া। তাই তার দলবদলে শুধু বিহার নয় গোটা দেশের বাম কর্মী সমর্থকেরা কিছুটা হলেও আঘাত পাবেন পাবেন।

Advertisements