Big Breking: মমতার বিরুদ্ধে কোভিড বিধি ভঙ্গের অভিযোগ জানিয়ে কমিশনকে চিঠি বিজেপির

বিজেপি অথবা তৃণমূল একে অপরের এতোটুকু ভুলে তুলোধুনা ছাড়েনা একদল অন্যকে। এই দিন বুধবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভবানীপুরের একটি গুরুদ্বারায় গিয়েছিলেন। মূলত জনসংযোগের লক্ষ্যেই তিনি গিয়েছিলেন। তার এইদিন ভবানীপুরের গুরুদ্বারে যাওয়াকে কেন্দ্র করে বিজেপি তাঁর বিরুদ্ধে কোভিড বিধি ভাঙ্গার অভিযোগ করেছেন। অভিযোগে বলা হয়েছে তিনি এই দিন ওখানে যাওয়ার জন্য বিপুল পরিমানের জনসমাগম হয়েছিল। এই সময়ে একেবারেই যা করা উচিত না ।

কোভিডের তৃতীয় ঢেউ চোখ রাঙাচ্ছে গোটা দেশকে। মতো পরিস্থিতিতে বিপুল জনসমাগম করা একজন মুখ্যমন্ত্রী পক্ষে কখনই উচিত হয়নি। এইদিন বিজেপির নির্বাচন কমিটির এজেন্ট সজল ঘোষ কমিশনকে চিঠিতে লিখিত অভিযোগ দেন। বিজেপি এজেন্ট সজল ঘোষের দাবি এদিন ভবানীপুরের গুরুদ্বারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে অনুসরণ করে প্রচুর পরিমাণে তৃণমূল সমর্থকরা ভিড় জমান। কোন রকম ভাবেই মানা হয়নি সোশ্যাল ডিসটেন্সের নিয়ম ।

এছাড়া যে সমস্ত মানুষরা ভিড় করেছিলেন তাদের অর্ধেকের মুখে ছিল না মাক্স এবং কোনরকম স্যানিটাইজার এর ব্যবহারও ছিল না। ফলে পুরো অনুষ্ঠানে রীতিমতো ভাবে কোভিড বিধি ভাঙ্গা হয়েছে । ভবানীপুরের কেন্দ্রীয় রিটার্নিং অফিসার কে বৃহস্পতিবার সজল ঘোষ চিঠিতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

Advertisements

বিজেপি এজেন্ট সজল ঘোষ এর কথায় কভিডের এই আসন্ন তৃতীয় ঢেউ এর মুখে তৃণমূল দলের এরকম অবিবেচকের মতো কাজ করা কখনই ঠিক হয়নি। নির্বাচন কমিশনকে দেয়ার অভিযোগে সজল ঘোষ আরো বলেছেন- ইচ্ছাকৃতভাবে তৃণমূল নেতারা জনসমাগম ঘটিয়েছেন । এই জনসভাযর ফলে সাধারণ মানুষের চরম সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে । হয়েছে যানজট । ফলে সাধারণ অফিস যাত্রীরা চরম ভোগান্তির মুখে পড়েছেন। এছাড়া তৃণমূল নেতারা ইচ্ছাকৃতভাবে সংবাদমাধ্যমকে এই সমাগমে আহ্বান জানিয়েছিলেন প্রচার পাবার আশায় ।

Advertisements

এর ফলে সাধারণভাবে ভিড় আরো বাড়ে । সবমিলিয়ে কভিডের কোনরকম বিধিনিষেধ মানা হয়নি। ফলে আসন্ন তৃতীয় ঢেউয়ের মুখে সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ।নির্বাচন কমিটি কোভিডের যে নির্দেশিকা জারি করেছেন তার কোনোকিছু মানা হয়নি। তিনি দাবি করেছেন ভবিষ্যতে যেন এ রকম কোনো জনসমাগমের অনুমতি না দেওয়া হয়। কয়েকদিন আগেই বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কার নামেও কভিডের বিধিনিষেধ না মানার অভিযোগ করা হয়েছিল তৃণমূলের পক্ষ থেকে ।মনোনয়ন জমা দেবার ক্ষেত্রে কমিশনের নির্দেশ অনুযায়ী ৫ জন সঙ্গে থাকার কথা কিন্তু বিজেপির তরফ থেকে সেই নিয়ম মানা হয়নি ।

একথা অভিযোগ করেন তৃণমূল। ভবানীপুর কেন্দ্রের রিটার্নিং অফিসার প্রিয়াঙ্কাকে চিঠির মাধ্যমে এর উত্তর দেয়ার কথা নির্দেশ দেন ।তবে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াংকা তার বিরুদ্ধে আনা সমস্ত রকম অভিযোগ অস্বীকার করেন । তবে উপনির্বাচনের সময় যতই এগিয়ে আসছে বিজেপি তৃণমূলের অন্তর্কলহ ততই বাড়ছে। এখন শুধু দেখার অপেক্ষা শেষ জয়ের হাসি কে হাসে।