আয়কর ছাড়ে বড় ঘোষণা অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণের এবার থেকে কর ছাড়ে সাশ্রয় করতে পারবেন অনেকখানি টাকা…

নতুন ভারতের নতুন আশা এবং বেসরকারি ক্ষেত্রেকে উৎসাহদান নিয়ে নিজের দ্বিতীয় বাজেট ভাষণের শুরুতেই, সরকারের দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্যের কথা জানালেন নির্মলা সীতারামন। বিরোধীরা এতদিন দাবি করে আসছে যে ভারতের অর্থনৈতিক যত দিন যাচ্ছে তত পতনে চলে যাচ্ছে। তাই তিনি ভারতের অর্থনৈতিক কে চাঙ্গা করার জন্য নানান ক্ষেত্রে সরকারি খরচ বাড়ানোর কথা ঘোষণা করেছেন। গ্রাম এবং গ্রামীণ ভারত বরাবরই ভারত সরকারের এই বাজেটের গুরুত্ব পায়।

এবারের বাজেও আলাদাভাবে কিছু হয়নি। প্রতি বারের বাজেটের মতন এবারও কৃষি এবং গ্রাম উন্নয়ন ক্ষেত্রে সরকারের তরফ থেকে টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। নির্মলা সীতারমণ জানিয়েছেন কৃষি এবং গ্রাম উন্নয়ন ক্ষেত্রে 2.83 লক্ষ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। শিক্ষা এবং দক্ষতা উন্নয়নের ক্ষেত্রে আগামী অর্থবর্ষে সরকারের তরফ থেকে 1 লক্ষ কোটি টাকারও বেশি খরচ করা হবে বলে জানানো হয়েছে। এছাড়াও তপশিলি জাতি, জনজাতি এবং অনগ্রসর শ্রেণির ক্ষেত্রে সরকারের তরফ থেকে 1.40 লক্ষ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হবে। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন সাধারণ বাজেট পেশ করার সময় স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিয়েছেন যে, নতুন আয়কর নীতিতে 70 রকমের ছাড় বাদ দেওয়া হবে। এর মানে হল যে করদাতা নতুন হারে কম কর দিতে চান তিনি 70 রকমের ছাড় পাবেন না। অপরদিকে আবার পুরনো হারে কর দিলে সব রকমের ছাড় পাওয়া যাবে বলে জানানো হয়েছে। এবার আমরা নিচে আলোচনা করব নতুন না পুরনো কোন হারে কর দিলে আমাদের লাভ হবে —

1. যদি এক্ষেত্রে আপনার বার্ষিক আয় 7.5 লক্ষ টাকা হয় – পুরনো নিয়ম অনুসারে এই আয় থেকে 80 সি ধারায় বিনিয়োগ করার জন্য আপনি ছাড় পাবেন 1,50,000 টাকা। এরপর নেট করযোগ্য আয় হল 6,00,000 টাকা। এই টাকার ওপর কর দিতে হবে 33,800 টাকা। কিন্তু নতুন নিয়ম অনুসারে অর্থাৎ নতুন হারে কর দিতে হলে তাকে মোট 39,000 টাকা দিতে হবে। দুটোই মিলিয়ে দেখা যাচ্ছে পুরোনো নিয়মে 5,200 টাকা কম দিতে হচ্ছে। 2.  যদি কোন ব্যক্তির বার্ষিক আয় 12.5 লক্ষ টাকা হয় – এই ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম অনুসারে কর দেওয়া বুদ্ধিমানের কাজ হবে। পুরনো হিসেবে এই আয়ে 80সি ধারায় আপনি বিনিয়োগের জন্য ছাড় পাবেন 1,50,000 টাকা। এবারে নেট কর যোগ্য আয় হল 11,00,000 টাকা ।এতে সরকারকে কর দিতে হবে 1,48,200 টাকা। এবং নতুন নিয়ম অনুসারে কর দিতে হলে 1,30,000 টাকা দিতে হবে। অর্থাৎ দুটোই মিলিয়ে দেখা গেলে নতুন নিয়মে 18,200 টাকা সাশ্রয় হচ্ছে।

3. যদি বার্ষিক আয় 15 লক্ষ টাকা হয় – এই ক্ষেত্রেও নতুন হারে কর দেওয়া বুদ্ধিমানের কাজ হবে। পুরোনো নিয়মে 80সি ধারায় আপনাকে বিনিয়োগের জন্য ছাড় দেওয়া হবে 1,50,000 টাকা। এবারে নেট করযোগ্য আয় দাঁড়ালো 13,50,000 টাকা। এতে সরকারকে কর দিতে হবে 2,26,200 টাকা। কিন্তু নতুন নিয়ম অনুসারে কর দিতে হলে 1,95,000 টাকা সরকারকে দিতে হবে। অর্থাৎ আপনার মোট সাশ্রয় হচ্ছে 31,200 টাকা ।4. আর যদি বার্ষিক আয় 16 লক্ষ টাকা হয় – এই ক্ষেত্রেও নতুন হারে কর দেওয়া টাই আপনার পক্ষে সুবিধাজনক। এক্ষেত্রে আপনি ছাড় পাবেন 1,50,000 টাকা। এবার নেট করযোগ্য আয় হলো 14,50,000 টাকা। এতে সরকারকে কর দিতে হবে 2,57,400 টাকা । এবং নতুন হারে কর দিতে হলে তাকে মোট দিতে হবে 2,26,200 টাকা। সুতরাং নতুন নিয়মে আপনার মোট সাশ্রয় হচ্ছে 31,200 টাকা।