বড় ঘোষণা কেন্দ্রের, এবার থেকে ব্যাঙ্ক বন্ধ হয়ে গেলেও বীমা বাবদ মিলবে ৫ লক্ষ টাকা

আর্থিক সংকটের মুখোমুখি রয়েছে বেশ কয়েকটি ব্যাংক। কিছু ব্যাংক আবার বন্ধ হয়ে গিয়ে গ্রাহকদের হতে হয়েছে কোটি কোটি টাকা লোকসান। এবার সেই সমস্ত ব্যাংকের গ্রাহকদের স্বস্তি দিতে বড় পদক্ষেপ নিল কেন্দ্রীয় সরকার। বুধবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার একটি বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যদি ব্যাংক বন্ধ হয়ে যায় তাহলে আমানতকারীরা বীমা বাবদ সর্বোচ্চ ৫ লক্ষ টাকা করে পাবেন। এদিন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানিয়ে দেন এর ফলে প্রায় ৯৮.৩ শতাংশ ব্যাংক অ্যাকাউন্ট গ্রাহকেরা সুরক্ষিত থাকবেন।

বুধবার বিকেলের সাংবাদিক সম্মেলন করে জানিয়ে দেন অর্থমন্ত্রী যে মন্ত্রিসভার DICGC BILL ২০২১ পাস হয়ে গিয়েছে। তিনি বিস্তারিত ভাবে জানাতে গিয়ে বলেন ডিপোজিট ইনসিওরেন্স এন্ড ক্রেডিট গ্যারান্টি কর্পোরেশন আইনের সংশোধনী এই নয়া নিয়মের আওতায় থাকবে ভারতের সমস্ত ব্যাংক। এমনকি বাণিজ্যিক ব্যাংক এবং বিদেশি ব্যাংকের ভারতীয় শাখার আমানতকারীরা এই বীমার আওতায় পড়বেন।এদিন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন আরো জানান সাধারণত এইসব ক্ষেত্রে বীমার টাকা পেতে 8 থেকে ১০ বছর লেগে যেত। কিন্তু এক্ষেত্রে তা লাগবে না ব্যাংক উঠে যাওয়ার ৯০ দিনের মাথায় টাকা পাওয়ার সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। নিঃসন্দেহে এর ফলে আমানতকারীরা অনেকটাই স্বস্তি পাবেন। বিশেষত পাঞ্জাব ও মহারাষ্ট্র সমবায় ব্যাংক, ইয়েস ব্যাংক এবং লক্ষীবিলাস ব্যাংক এর মতো লোকসানে চলা বা বন্ধ হতে চলা ব্যাংক গ্রাহকদের জন্য নির্মলা সীতারামন এর এই সিদ্ধান্ত স্বস্তি দিতে চলেছে। এর আগে গ্রাহকেরা ব্যাংক উঠে গেলে ১ লক্ষ টাকা করে বীমা বাবদ পেতেন। নতুন এই আইনে সেই অংক এক লাফে অনেকটাই বেড়ে ৫ লক্ষ টাকা করা হল।

তবে ব্যাংক উঠে যাওয়ার সংশোধনীর কথা আগেই জানিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন । এই বছরের বাজেট এর শেষ বক্তৃতায় তিনি ঘোষণা করেছিলেন কোন ব্যাংক বন্ধ হয়ে গেলে পাঁচ লক্ষ টাকা করে পেতে চলেছেন আমানতকারীরা। কিন্তু অধিবেশন সংক্ষিপ্ত হওয়ার কারণে সংশোধনীর প্রতিশ্রুতি দিলেও তা কার্যকর হয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি।