শীতে উষ্ণ গরম জলেই সুস্থ থাকবে শরীর, নিয়মিত পান করলে মিলবে নিশ্চিত উপকারিতা

করোনা আবহে শরীর সুস্থ রাখতে আমরা সবাই চাইছি। তাই আগে না করলেও এখন সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা অনেক কিছু করছি৷ যেমন অনেকেই গরম জলে লেবু বা অ্যাপেল সিডার ভিনিগার মিশিয়ে খান, কেউ আদা, দারুচিনি, গোলমরিচের জল, এরপর চা, ব্রেকফাস্ট চলতেই থাকে।

কিন্তু বিকেলের পর অনেকেই সন্ধেতে চা আর ভাজাভুজি খেয়ে শীতের রাতে আর কিছু খান না। আবার এমনও অনেকে আছেন, যাঁরা ডিনারেও কবজি ডুবিয়ে পোলাও, মাংস, ফিশফ্রাই খেতে ভালোবাসেন। কিন্তু এত কিছু খাওয়ার পর রাতে মোটেই পরিমাণ মতো জল খেতে চান না।

বেশি জল খেলে বেশিবার বাথরুমে যেতে হবে৷ ঘুমের ব্যাঘাত ঘটবে৷ এই ভয়ে জল না খেয়েই ঘুমিয়ে পড়েন৷ কিন্তু রাতে এত তেল মশলাদার খাবার খেলে অবশ্যই গরম জল খাবেন। সাধারণ দিনেও যদি রাতে শোবার সময় হালকা গরম জল খেয়ে শুতে যান প্রচুর উপকার হবে৷

কয়েক আলোকবর্ষ দূরের গ্রহ থেকে এলো রেডিও সংকেত, দাবি বিজ্ঞানীদের

• সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে ঘুমোতে যাওয়ার আগে গরম জল খেলে স্নায়বিক উত্তেজনা কমে। ফলে আমরা নিশ্চিন্তে ঘুমোতে পারি।

• ইষদুষ্ণ জল টক্সিন দূর করে। গরম জল খেলে শরীরের তাপমাত্রা অল্প হলেও বাড়ে। ঘাম হয়। আর তাতেই সব টক্সিন দূর হয়ে যায়।

• শীতকালে খুব সহজেই গ্যাস, অম্বল হয়। যে দিন রুটিনের বাইরে খাবার খেয়ে ফেলবেন সেদিন শুতে যাওয়ার আগে অবশ্যই গরম জল খান।এতে হজম ভালো হবে। সকালে পেটও পরিষ্কার হবে।

• শীতে অনেকেই জল কম খান। ফলে শরীর কষে যায়। ইষদুষ্ণ জল খেলে এই সমস্যাও কমবে আর পেটে গ্যাসও জমবে না।

• শীতে শরীর শুকনো হয়ে যায়। তাই সুস্থ থাকতে বেশি করে জল খেতে হবে। গরম জল খেলে শরীর হাইড্রেট থাকে। গরম জল আমাদের শরীরে রক্ত সঞ্চালন ঠিক রাখে।