ভারত সরকারের ডিজিটাল অ্যাটাকিং পদ্ধতি চীনা অ্যাপ ব্লক করার পদক্ষেপে ক্ষেপে উঠল বেজিং..

গালওয়ান উপত্যকায় চীনকে যেভাবে ভারত এখন শিক্ষা দিচ্ছে তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছে চীন। কয়েকদিন আগে চীনের সেনারা ভারতীয় জাওয়ানদের নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল। এতে 20 জন ভারতীয় জওয়ান শহীদ হন। এরপরে ভারতের তরফ থেকে চীনকে কড়া হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়। আর তারপর থেকেই দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা ক্রমশ বেড়েই চলেছে। এমন কী দুই দেশের মধ্যে বর্তমানে যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তার জেরে যুদ্ধ পর্যন্ত ঘটতে পারে এমনটা পর্যন্ত আশঙ্কা করা যাচ্ছে।

আর এবার ভারত সরকার চীনকে ডিজিটাল দিক থেকে ধাক্কা দিতে বড় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।গতকাল সোমবার দিন টিকটক (Tik-Tok), উইচ্যাট (WeChat), ইউসি ব্রাউজার (Uc Browser) এর মতো আরও 59 টি জনপ্রিয় চীনা অ্যাপ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ভারত সরকারের তরফ থেকে। আর সরকারের এরকম এক নির্দেশিকা মেনে আজ সকাল থেকেই গুগোল প্লে স্টোর ও অ্যাপেল স্টোর থেকে এক এক করে সরিয়ে নেওয়া হয় এই অ্যাপগুলি।তবে এখনো কিছু কিছু ব্যবহারকারী স্মার্টফোনে রয়েছে এই বিভিন্ন অ্যাপ গুলি তবে সময়ের সাথে ধীরে ধীরে সেগুলিও বন্ধ হয়ে যাবে।

তবে ভারত সরকারের এরকম এক চীনা বর্জনের নীতিতে বেজায় অসন্তুষ্ট রয়েছে বেজিং। এ বিষয়ে চীনের বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছে টিকটক সহ আরো 59 টি চীনা অ্যাপ বর্জনের পর গোটা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখা হবে। চীনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র ঝাও লিঝিয়ান জানিয়েছেন এ বিষয়ে চীন বেশ চিন্তিত রয়েছে, তাছাড়া সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন ভারতে ব্যবসা করা চীনা সংস্থাগুলির অধিকার রক্ষা করার দায়িত্ব ভারতের আর এটি ক্ষুণ্ন হচ্ছে বলে জানান তিনি।

যদিও এক্ষেত্রে সরকারের কাছে নিজেদের অ্যাপের সুরক্ষা সংক্রান্ত তথ্য দিতে বলা হয়েছে বেশকিছু চীনা সংস্থাকে, এবং তার উপর ভিত্তি করে আগামী দিনে এই অ্যাপসটির উপরে ব্যান জারি থাকবে কীনা সেটি বিবেচিত করা হবে। অন্যদিকে এক্ষেত্রে ভারতের মধ্যে অতি কম সময়ের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠা অ্যাপ টিকটক সংস্থার বাইটড্যান্স ইতিমধ্যে দাবি করছে তাদের অ্যাপে সিকিউরিটি সংক্রান্ত কোনো গাফিলতি নেই বলে। এমন কী এক্ষেত্রে ব্যবহারকারীদের তথ্য হাতানো বা চীন সরকারের সঙ্গে কোনো যোগসূত্র থাকার কথাও তারা বর্তমানে অস্বীকার করেছে।

 

Related Articles

Close