ভোটের আগে দিব্যি মিলছিল ৫ টাকায় দিম ভাত ,তবে ক্ষমতায় ক্ষমতায় এসেই ‘উধাও’ সব

কয়েক মাস আগে পশ্চিমবঙ্গে ২০২১ এর বিধানসভা ভোট শেষ হয়েছে। ভোটের সময় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃতীয়বারের জন্য বিধানসভা নির্বাচন জিততে ৫ টাকায় ডিম ভাত প্রকল্প চালু করেছিলেন। তবে ভোটের পর আর দেখা যাচ্ছে না ‘মা ক্যান্টিনের’। বিরোধীরা, বিশেষ করে বিজেপি ও বামেরা প্রশ্ন তুলেছেন ‘যে সবটাই কি ভোটের জন্য মানুষকে বোকা বানাতে মুখ্যমন্ত্রীর এই প্রকল্প’? ভোটের আগে ১৫ ফেব্রুয়ারি বেশ ঘটা করে চালু হয়েছিল ‘মা ক্যান্টিনের’।

ভোটের সময় প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী যে ভোটের পর এই ৫ টাকার ডিম -ভাত প্রকল্প রাজ্যজুড়ে শুরু হবে। তবে ভোটের পর আর সেই ভাবে দেখা যায়নি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বাদের প্রকল্প :মা ক্যান্টিনের’।কয়েকটি জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে চললেও বন্ধ কলকাতা ও রাজ্যের বেশিরভাগ ক্যান্টিন। ভোট বাজারে নিজেদের পালে হাওয়া তোলার জন্য ৫ টাকার ডিম ভাত বিনামূল্যে রাসন নের মতো পদক্ষেপ নিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ফলস্বরূপ বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে তৃতীয় বারের মতো মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন তিনি। তবে ভোটের আগে মাত্র ৫ টাকায় এক থালা ভাত, সবজি, ডাল এবং সাথে এক পিস ডিম দেওয়া হত। ভোটের আগে অবশ্য বাজেট বা ভোট অন একাউন্টে মা প্রকল্পের অধীনে রাজ্যব্যাপী কমন কিচেন তৈরীর কথা জানিয়েছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী।এই প্রকল্প বাবদ ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দের ঘোষণা করেন মমতা।

‘মা ক্যান্টিন’ প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন ‘রাজ্যের দুস্থ মানুষজন রাতে দুবেলা খেতে পায় সেই লক্ষ্যেই ‘মা’ নামের এই নতুন প্রকল্প করা হলো, যার মাধ্যমে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় সকলের জন্য স্বল্প মূল্যে কমন কিচেন অর্থাৎ রান্না করা খাবার দেওয়া চালু হল’। তবে ভোট মেটার পর একরকম বন্ধ হয়ে পড়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘মা ক্যান্টিন’। নতুন করে খোলা তো দূর খাস কলকাতাতেই শ্রমিক, দিনমজুর সহ বহু গরিব মানুষ এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত। মুখ্যমন্ত্রীর এই স্বপ্নের প্রকল্প তাহলে কি শুধু বিধানসভা ভোটের জন্য একটা গেম প্ল্যান? প্রশ্ন বিরোধী দল থেকে সাধারণ মানুষেরও।