করোনার তৃতীয় ঢেউ আসার আগে বড়সড় পদক্ষেপ মোদি সরকারের, বরাদ্দ ২৩ হাজার কোটি টাকা

কোভিড মোকাবিলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদির সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় একটি নতুন প্রকল্প কোভিড-১৯ জরুরীকালীন বরাদ্দের তৃতীয় ধাপের ভিত্তিতে ২০২১-২২ অর্থ বছরের জন্য ২৩,১২৩ কোটি টাকার একটি বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। রদবদলের পর কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক ছিল বৃহস্পতিবার। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাসভবনে আয়োজিত সেই বৈঠকে অতি মারি পরিস্থিতি মোকাবেলার উদ্দেশ্যে এই আপদকালীন বরাদ্দ অনুমোদন করা হয়েছে।

মূলত তৃতীয় ঢেউ আসার আগে স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর উন্নতি ছাড়াও স্বাস্থ্য ব্যাবস্থা কে ঢেলে সাজাতে এই টাকা ব্যয় করা হবে বলে জানা গেছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জানা গেছে বরাদ্দ অর্থের মধ্যে ১৫ হাজার কোটি টাকা সরাসরি কেন্দ্র খরচ করবে অন্যদিকে ৮,১২৩ কোটি টাকা রাজ্যগুলির মধ্যে বন্টন করা হবে। আগামী ৯ মাসের মধ্যে তাৎক্ষণিক প্রয়োজনীয়তার ভিত্তিতে এই কর্মসূচি কার্যকর করা হবে বলে জানা গেছে।

বুধবার স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষবর্ধন কে সরিয়ে গুজরাটের বিজেপি নেতা মনসুখ মান্ডব্য কে নতুন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী পদে নিয়োগ করেছে নরেন্দ্র মোদির সরকার। বৃহস্পতিবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর মনসুখ বলেন ‘এই টাকায় দেশের ৭৩৬ টি জেলায় স্বাস্থ্যকেন্দ্র গুলিতে শিশু চিকিৎসা বিভাগ গড়া হবে। ব্যবস্থা করা হবে ২০ হাজার আইসিইউ শয্যার। পাশাপাশি পর্যাপ্ত পরিমাণ ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম মজুত করা হবে সমস্ত সরকারি হসপিটালে’।

করোনাভাইরাস এর তৃতীয় ঢেউয়ে শিশুদের আক্রান্তের সম্ভাবনা জানিয়েছে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। তাই করোনার দুটি ঢেউ থেকে শিক্ষা নিয়ে পরিস্থিতির মোকাবিলায় এই সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণ করেছে কেন্দ্র। গতবছর করোনাভাইরাস ভারতে প্রবেশ করার পর মে মাসে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় ২০ লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজের ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যদিও সেই আর্থিক অনুদানের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিল ‘গরিব কল্যাণ যোজনা’।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন গত মাসে জানান এ পর্যন্ত গরিব পরিবারগুলিকে খাদ্য দিতে ২লক্ষ ২৭ হাজার ৮৪১কোটি টাকা খরচ করেছে কেন্দ্র। পাশাপাশি স্বাস্থ্য পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্য ৫০ হাজার কোটি এবং পুষ্টি যুক্ত খাদ্য সরবরাহের জন্য পৃথক ভাবে ১লক্ষ ৪৭ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকা বরাদ্দের কথা জানান নির্মলা সীতারামন।