2019 এর লোকসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি-শিবসেনার জন্য সুখবর, বিরোধীদের ঝটকা দিয়ে উড়লো গেরুয়া পতাকা..

নতুন দিল্লি:-২০১৯ এর ভোটের মতদানের জন্য আর মাত্র কিছু সময় বাকি, আর সকল রাজনৈতিক পার্টিরাই চটজলদি রেলি এবং রোড শোতে লেগে পড়েছে। কংগ্রেস দল তার সকল বিপক্ষ দল গুলিকে নিয়ে একটি মহাজোট গঠন করেছে। কংগ্রেস দলের সময় এতটাই খারাপ চলছে এবার তাকে শত্রুদলের সামনে হাত পাততে বাধ্য হতে হবে এবং অপরদিকে এত বড় লোকসভার ভোটের আগেই বিজেপি এবং শিবসেনা জয়লাভ করলো। সূত্রের খবর অনুসারে, সাধারণ ভোটের প্রচারের আগেই বিজেপি এবং শিবসেনা মহারাষ্ট্রের তরফ থেকে একটি অনেক বড় খুশির খবর পেল। বিজেপি এবং শিবসেনা মহারাষ্ট্র তে পালঘর নগর পরিষদ ভোটে তারা একটি অনেক বড় জয় লাভ করলো।

বিজেপি এবং শিবসেনা মোট ২৮ টি সিটের মধ্যে ২১ টিতে তাদের জয় স্পষ্ট । এবং নির্দলীয় রা ৫ টি সিটের জয় লাভ করতে পেরেছে।এবং এনসিপি ২৮ টি সিটের মধ্যে কেবল ২ টি সিট জিততে পেরেছে। তবে আপনাদের জানিয়ে দিই, লোকসভা নির্বাচনে ভোটের কিছু সময় আগেই মহারাষ্ট্র তে শিবসেনা এবং বিজেপি একই সঙ্গে ভোটের লড়াইয়ের সিদ্ধান্ত নেন , এছাড়াও এই দুটি দলের মধ্যেই সিট ভাগ করাও হয়ে গেছে। কিছু সময় আগে পর্যন্ত শিবসেনা মোদিজীর নেওয়া প্রত্যেকটি নীতিরই পুরোপুরি আলোচনা করত কিন্তু ২৫টি পার্টির এই মহাগঠবন্ধন টি দেখে ভগবা পার্টি ও এক হতে গেলো।সব মিলিয়ে লোকসভার ভোটের আগে পালঘর নগর পরিষদের ভোটে বিজেপি এবং শিবসেনার পাওয়া জয় টি ২ টো পার্টির জন্যই শুভ সংকেত।রিপোর্ট অনুসারে আগস্ট ২০১৪ তে ঠানে জেলা থেকে আলাদা হওয়ার পর পালঘর জেলায় পরিষদের এটি প্রথম ভোট ছিল, আর এই ভোটে ৪৮ হাজার মতদাতারা ভাগ নিয়েছিল।

লোকসভা ভোটের আগে মহারাষ্ট্রের এই ভোটটির ওপর সবার চোখ টিকে ছিল।এই ফলাফল গুলি থেকেই স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে যে, অর্থশহরী এলাকায় কংগ্রেস এবং এনসিপি দল ,বিজেপি এবং শিবসেনা কে টক্কর দিতে পারেনি। আপনাদের জনিয়েদিই বিজেপি এবং শিবসেনার গণ্ঠবন্ধনটি পালঘরে জোরদার ভাবে প্রচার চালিয়ে ছিল। শিবসেনার মন্ত্রী একনাথ সিন্দে বলেছিলেন, অবশ্যই এই পালঘরটির ভালোভাবে বিকাশ করা হবে, অপরদিকে বিজেপির রাজ্যমন্ত্রী রবীন্দ্র চড়ানো ভোটদাতাদের বিভিন্ন রকম আশ্বাস দিয়েছিলেন।

keya Mondal

Keya Mondal, follower of truth, student of politics and governance.Graduted in Sanskrit . Email: keyamondal.india@gmail.com

Related Articles

Close