বায়ুসেনাকে যে কোনও পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে বললেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং

লাদাখ সীমান্তে চীন এবং ভারতের উত্তেজনা বাড়ার পরে সেখানকার সেনাবাহিনীদের মনোবল বাড়ানোর জন্য লাদাখ সফরে যান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেখানেও তিনি চীনকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন। এবং ভারত এবং চীন সেনাদের সংঘর্ষে যেসমস্ত জাওয়ানরা আহত হয়েছিলেন তাদের কেউ দেখতে যান তিনি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর লাদাখ সফরে যাওয়ার কয়েক দিন পরেই প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং লাদাখ সফরে যান।

এদিন রাজনাথ সিং লাদাখ সফরে গিয়ে বলেছিলেন যে, চীনের সঙ্গে আলোচনা চলছে।কিন্তু এই আলোচনা ঠিক কতটা কার্যকর হবে সে সম্পর্কে এখনো কিছু বলা যাচ্ছে না। বুধবার এই বিষয়ে রাজনাথ সিং বলেন, যেকোনো পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকুক বিমানবাহিনী। তিনি এও বলেন যে, এয়ার ফোর্স লাদাখ সীমান্তে যেভাবে পৌঁছেছিল তাতে শত্রুপক্ষের কাছে কড়া বার্তা পৌঁছেছে। এ বিষয়ে এয়ার চিফ মার্শাল আরকেএস ভাদুরিয়া জানিয়েছেন যে, শত্রুপক্ষের যেকোনো আক্রমণের পাল্টা জবাব দিতে সব সময় প্রস্তুত রয়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনী।

ইতিমধ্যে এ বিষয়ে বুধবার থেকে লাগাতার তিনদিন কমান্ডার পর্যায়ে বৈঠক হয়।এই বৈঠক কনফারেন্সে শুরুতেই বক্তব্য রাখেন রাজনাথ সিং। এই বক্তব্যে সেনাবাহিনীর প্রতি সারা দেশবাসীর আস্থা তুলে ধরেন তিনি। এদিন তিনি বলেন, যেভাবে বায়ুসেনা বালাকোটে পেশাদারী কায়দায় হামলা করেছিল এবং লাদাখে দ্রুত সংঘর্ষের স্থলে পৌঁছে গিয়েছিল তাতে শত্রুপক্ষ খুব ভালোভাবে বুঝে গেছে ভারতীয় বায়ুসেনার ক্ষমতা কতখানি। এবং রাজনাথ সিং আরো বলেছেন যে সেনাদের যেটা প্রয়োজন সেটা অভাব কোনদিনও হবে না।

বায়ুসেনার শক্তি বাড়ানোর জন্য যা যা প্রয়োজন তা সমস্ত কিছু দেওয়া হবে। বায়ু সেনার প্রধান আরকেএস ভাদুরিয়া জানিয়েছেন যে, যেকোনো রকম চ্যালেঞ্জের জন্য প্রস্তুত রয়েছে বায়ুসেনা। আপনাদের জানিয়ে দিই আগামী 29 জুলাই অনেকদিন প্রতীক্ষার পর ভারতের কাছে আসতে চলেছে রাফাল। এর ফলে ভারতের সামরিক শক্তি কয়েকগুণ বেড়ে যাবে তা নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে। তবে রাফাল বিমান লাদাখ সীমান্তে কী মোতায়েন করা হবে সে সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।