টেক নিউসনতুন খবরবিশেষ

সবধান! WhatsApp ব্যবহারকারীরা হতে পারেন নতুন জালিয়াতির শিকার, তাই সময় থাকতে অবশ্যই..

বর্তমানে ডিজিটাল যুগের অন্যতম মেসেজিং অ্যাপ হল হোয়াটস অ্যাপ (WhatsApp)। সমস্ত অফিস থেকে শুরু করে বাড়িতে হোয়াটস অ্যাপের ব্যবহার হয় ব্যাপকভাবে। কিন্তু অনেক সময় ইউজারদের তথ্য হ্যাক হওয়ার অভিযোগ উঠে এসেছে এর আগে। এবার আবারও নতুন করে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের হ্যাকিংয়ের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে বলে জানা গিয়েছে এক রিপোর্টে। এই রিপোর্টে জানা গিয়েছে, বেশ কিছু হ্যাকার তারা নিজেদের হোয়াটসঅ্যাপের টেকনিক্যাল টিমের সদস্য বলে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারী দের সাথে জালিয়াতি করছে।

এমন কী এই ধরনের জালিয়াতি করার জন্য একটি নকল হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট খোলা হচ্ছে। WhatsApp বিটা ইনফর একটি টুইটে জানিয়েছেন যে, সাইবার হ্যাকাররা নকল পরিচয় দিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের ভেরিফিকেশন কোড চেয়ে নিচ্ছে। এই ভেরিফিকেশন কোড চাওয়ার সময় যাতে ব্যবহারকারীরা কোন রকম সন্দেহ না করতে পারে তার জন্য বেশ এক্টিভ থাকে হ্যাকাররা।এমন কী হ্যাকাররা নিজেদের প্রোফাইল ফটোতে হোয়াটসঅ্যাপের লোগো লাগিয়ে রাখে।

যাতে তাদের উপর কোন রকম সন্দেহ না হয়। এরপর হ্যাকাররা তাদের অ্যাকাউন্ট থেকে হোয়াটস্যাপ ব্যবহারকারীদের কিছু ফেক মেসেজ পাঠায়। এক্ষেত্রে এইসব হ্যাকারদের থেকে বাঁচার জন্য আপনাকে কিছু কিছু জায়গায় খুবই সচেতন থাকতে হবে। যেগুলি নিচে আলোচনা করা হলো – এমনটা হয়ে থাকে WhatsApp এ লোগো দেখে বহু মানুষ ভেবে নেয় যে তারা হোয়াটসঅ্যাপের টেকনিকেল টিমের সদস্য কিন্তু আসলে তারা হ্যাকার। তাই এই ব্যপারে ব্যবহারকারীদের সম্পূর্ণ সজাগ থাকতে হবে।

এ বিষয়ে হোয়াটসঅ্যাপ বিটা ইনফো জানিয়েছে যে, হোয়াটসঅ্যাপ কখনোই তাদের ব্যবহারকারীদের নিজের অ্যাপ্লিকেশন থেকে মেসেজ পাঠাবে না। আর যদি কখনো পাঠিয়ে থাকে তাহলে অ্যাকাউন্টের ইউজার নেম এর পাশে একটি সবুজ ভেরিফিকেশন আইকন দেওয়া থাকবে। যা দেখে ব্যবহারকারীদের বুঝে নিতে হবে এরা হ্যাকার নয়। এছাড়াও ব্যবহারকারীদের মনে রাখা উচিত যে হোয়াটসঅ্যাপের কোন আধিকারিক তাদের ইউজারদের কাছ থেকে কোনরকম ভেরিফিকেশন কোড চায় না। এমন এর আগে অনেকবার হয়েছে হ্যাকাররা হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে কোনরকম ভাবে কোড নিয়ে নেয়। এরপর ব্যবহারকারীদের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য চুরি করে নেয় হ্যাকাররা। তাই এই ধরনের কোড যদি চাওয়া হয় তাহলে সে বিষয়ে সতর্ক থাকুন।

Related Articles

Back to top button