কেন 4 সংখ্যারই পিন সেট করা হলো ATM-এ, এর পেছনে রয়েছে দারুণ ভালোবাসার গল্প, জানুন সে অজানা কাহিনী

এক সময় ছিল যখন আমাদের অর্থের প্রয়োজনে ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হতো ব্যাংকের সামনে। সব থেকে বিপদে পড়তে হতো রাতে কোন সমস্যা তৈরি হলে। বাড়িতে মোটা অংকের টাকা রাখা যেত না আবার অন্যদিকে হঠাৎ করে কোনো প্রয়োজনে টাকা তোলা যেত না ব্যাংক থেকে। এমতাবস্থায় মানুষ আবিষ্কার করল এটিএম এবং এই আবিষ্কারের ফলে মানুষের সমস্ত সমস্যা এক ঝটকায় মিটে গেল।

জানলে হয়তো অবাক হয়ে যাবেন যে মানুষটি এই এটিএম মেশিন তৈরি করেছেন তার জন্ম ভারতেই। বিজ্ঞানীর নাম জন এড্রিয়ান শেফার্ড ব্যারন। তিনি ১৯৬৭ সালে এটিএম মেশিন আবিষ্কার করেছেন। তবে এই মেশিন আবিষ্কার করতে গিয়ে বিজ্ঞানের মাথায় প্রথম চিন্তা আসে, যদি কার্ড হারিয়ে যায় তাহলে কি হবে? কিভাবে মানুষ নিজের সম্পত্তিকে সুরক্ষিত রাখতে পারবে? তখন থেকেই এটিএম পিন এর উদ্ভাবন হয়। এই এটিএম পিন আছে বলেই আপনার কার্ড হারিয়ে গেলেও টাকা সম্পূর্ণ নিরাপদে থাকে।

কার্ড সুরক্ষিত করার উদ্দেশ্যে প্রথমে ছয় সংখ্যার একটি পিন তৈরি করেছিলেন বিজ্ঞানী। তবে এই ছয় সংখ্যার পিনের কারণে তার স্ত্রীর বিরাগ ভাজন হতে হয় তাঁকে। বিজ্ঞানীর স্ত্রী কোনভাবেই এই ছয় সংখ্যার কোডকে মেনে নিতে পারছিলেন না। অবশেষে তৈরি হল চার সংখ্যা বিশিষ্ট একটি কোড। স্ত্রীকে ভালোবেসে সিকিউরিটি কোড ছোট করে দেন ওই বিজ্ঞানী।

আপনি হয়তো খেয়াল করে থাকবেন এটিএম ছাড়া অন্য সমস্ত সিকিউরিটি কোড ৬ সংখ্যা হয়। ৬ সংখ্যা না থাকলে আপনি কোন পাসওয়ার্ড সেট করতে পারবেন না। কিন্তু বিজ্ঞানের স্ত্রীর প্রতি ভালবাসার কারণে এটিএম কার্ডের ৬ সংখ্যার পিন পরিবর্তন হয়ে যায় ৪ সংখ্যাতে।