সত্যিই কী 31 শে মার্চের পর বাতিল হচ্ছে একাধিক ট্রেন? কী বলল রেল মন্ত্রক

কিছুদিন ধরে করোনার সংক্রমণের সংখ্যা কম মেলার জন্য ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে করোনার সংক্রমণ ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী হয়ে উঠছে। ইতিমধ্যেই করোনার ঊর্ধ্বগামী গ্রাফ দেখে বেশ কিছু রাজ্যে সতর্ক বার্তা দেওয়া হয়েছে। এই সংক্রমনের কথা মাথায় রেখে আগামী ৩১ মার্চ থেকে বিভিন্ন ট্রেন বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু রেলমন্ত্রকের তরফ থেকে জানিয়েছে যে এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

 

ভারতবর্ষে আবার ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী হয়ে উঠছে করোনার সংক্রমণ। জানুয়ারি মাসের দিকে ভারতে করোনার দৈনিক সংক্রমণ ছিল ১০ হাজার। কিন্তু এখন দিনে দিনে বাড়ছে করোনার সংক্রমিতের সংখ্যা। গত সোমবার ১৪ মার্চ দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা হল ২৬ হাজার ২৯১ জন। কিছুদিন আগে পর্যন্ত এই রকম করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পাওয়া যেত প্রায় ৮৫ দিনে। আক্রান্তের সংখ্যার সঙ্গে তালেতালে মিলিয়ে বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৭২৫। গত ২৪ ঘন্টায় ১১৮ জন মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে। মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ার সাথে কমেছে সুস্থতার হার। সাম্প্রতিক কালে ৯৬.৬৮ শতাংশ মানুষ সুস্থ হচ্ছেন। অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ২ লক্ষ ১৯ হাজার ২৬২।

মহারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, কর্ণাটক, গুজরাট ও তামিলনাড়ু সহ পাঁচটি রাজ্যের দ্রুত হারে ছড়াচ্ছে করোনার সংক্রমণ। এই রাজ্যগুলিতেই গোটা ভারতবর্ষের মধ্যে ৭৮.৪১ শতাংশ মানুষ সংক্রমিত হচ্ছে। সবথেকে বেশি করোনার সংক্রমণ মিলছে মহারাষ্ট্রে। শুধুমাত্র মহারাষ্ট্রে প্রায় ৬৩ শতাংশ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। সরকারি সূত্র মারফত খবর পাওয়া যায় ভারতের মোট ৮টি রাজ্যে দ্রুত হারে ছড়াচ্ছে করোনার সংক্রমণ।

 

রাজ্যগুলির মধ্যে রয়েছে মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, পঞ্জাব, মধ্য প্রদেশ, দিল্লি, গুজরাট, কর্ণাটক ও হরিয়ানা। এই বছরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে করোনার টিকা নিয়ে বৈঠক করেছেন।